Advertisement
১৮ জুন ২০২৪
TMC

তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে তপ্ত সেই খাগড়াগড়, জখম পঞ্চায়েত সদস্য-সহ কয়েক জন

তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত পূর্ব বর্ধমানের খাগড়াগড়। ঘটনায় এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য-সহ দু’পক্ষের অন্তত ৩ জন জখম হয়েছেন। তাঁদের ভর্তি করানো হয়েছে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

হাসপাতালে ভর্তি জখমরা।

হাসপাতালে ভর্তি জখমরা। — নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
বর্ধমান শেষ আপডেট: ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ ১১:৫৩
Share: Save:

তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত পূর্ব বর্ধমানের খাগড়াগড়। এই ঘটনায় এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য-সহ দু’পক্ষের অন্তত ৩ জন জখম হয়েছেন। তাঁদের ভর্তি করানো হয়েছে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। অভিযোগ, খাগড়াগড়ের সরাইটিকর পঞ্চায়েতের সদস্য শেখ ফিরোজ এবং স্থানীয় তৃণমূল নেতা আহমেদ আলি মণ্ডলের দলের মধ্যে সংঘর্ষে শনিবার সন্ধ্যায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ওই এলাকা। ওই কাণ্ডে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছে দু’পক্ষই। গ্রেফতার করা হয়েছে তিন জনকে।

সরাইটিকর পঞ্চায়েতের সদস্য ফিরোজের দাবি, এলাকার কয়েকজন দুষ্কৃতী তাঁকে মারধর করেন। এলাকায় অশান্তি পাকানোর জন্য তাঁর উপর হামলা হয়েছে বলে অভিযোগ তাঁর। অবশ্য স্থানীয় তৃণমূল নেতা আহমেদের অভিযোগ, ফিরোজ এলাকার কোনও উন্নয়নমূলক কাজ করেন না। এলাকায় তাঁরাই উন্নয়নমূলক কাজকর্ম করে থাকেন বলে দাবি আহমেদের। সেই ‘ঈর্ষা’য় এলাকার তৃণমূল কর্মী শেখ ইনসানকে ফিরোজের নেতৃত্বে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ তাঁর।

সংঘর্ষের ঘটনা নিয়ে জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন, ‘‘বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে কে কোন দল করে সেটা বিষয় নয়। কেউ এলাকায় অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করলে প্রশাসন আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে।’’ সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে থমথমে সরাইটিকর এলাকা। শনিবার সন্ধ্যা থেকে সেখানে মোতায়েন রয়েছে পুলিশ।

এ নিয়ে কটাক্ষ করেছে বিজেপি। পূর্ব বর্ধমান জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক মৃত্যুঞ্জয় চন্দ্র বলেন, ‘‘এটা নতুন নয়। তৃণমূলে টাকার ভাগ বাঁটোয়ারা নিয়ে সমস্যা। এমন ঘটনার জেরে সাধারণ মানুষই সমস্যায় পড়ছেন।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

TMC Political Clash Party Inner Clash
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE