Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

‘ঘরছাড়া’দের অভিযোগ শুনল কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশন

তিনি বলছেন, ‘‘বিজেপি করাটা ভুল হয়ে গিয়েছে। ঘরে ফিরতে পারছি না। অপ্রীতিকর এই পরিস্থিতিতে স্থানীয় নেতাদের সাহায্য পাচ্ছি না।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৮ জুন ২০২১ ২১:২৬
Save
Something isn't right! Please refresh.
সল্টলেকে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে অভিযোগ জানাতে ‘ঘরছাড়াদের’ লাইন

সল্টলেকে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে অভিযোগ জানাতে ‘ঘরছাড়াদের’ লাইন
নিজস্ব চিত্র

Popup Close

দু’মাস হতে চলল বিধানসভা ভোটের ফল প্রকাশ হয়েছে। বিজেপি-র অভিযোগ, রাজনৈতিক হিংসার কারণে ঘরছাড়ারা এখনও ঘরমুখো হননি। কর্মস্থানে ফিরতে পারেননি অনেকে। এই পরিস্থিতিতে দলও পাশে দাঁড়ায়নি বলে অভিযোগ ‘ঘরছাড়া’দের। অভিযোগের তির শাসকদল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। বিজেপি কর্মীদের একাংশের অভিযোগ, তৃণমূলের সন্ত্রাসের কারণেই তাঁরা এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। সোমবার ভোট পরবর্তী হিংসায় ক্ষতিগ্রস্তদের এমনই টুকরো টুকরো কথা উঠে এল সল্টলেকের সিআরপিএফ ব্যাটালিয়নে।


কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশে ভোট পরবর্তী হিংসার তদন্তের দায়িত্ব পায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। সেই মতো এই ঘটনায় তদন্তের জন্য একটি দল গঠন করে কমিশন। গত সপ্তাহ থেকে কমিশনের সদস্যরা রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে হিংসার ঘটনা ঘুরে দেখেন। আদালতের নির্দেশ মতো সোমবার ছিল অভিযোগ জমা নেওয়ার শেষ দিন। সেই মতো সিআরপিএফ ব্যাটালিয়নে উপস্থিত ছিলেন কমিশনের সদস্যরা। সেখানেই অভিযোগ জানাতে যান আক্রান্তকারীরা।


হিংসার কারণে ভুক্তভোগী ক্যানিংয়ের বাসিন্দা বিশ্বজিৎ মণ্ডল। দু’মাস তিনি ঘরে ফিরতে পারেননি। তাঁর অভিযোগ এলাকার বিধায়ক শওকত মোল্লার বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, ‘‘ভোটের পর থেকে বাড়িতে একাধিক বার আক্রমণ করেছে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা। ধান নষ্ট করে দিয়েছে। কোনওমতে প্রাণ বাঁচিয়ে এসেছি। আমি এলআইসির এজেন্ট। এখন গ্রাহকদের টাকাও সংগ্রহ করতে পারছি না। থানায় অভিযোগ জানিয়েও কোনও সাহায্য মেলেনি।’’ মানিকতলার বাসিন্দা অশোক সর্দার। ভোট পরবর্তী হিংসায় তিনিও ভুক্তভোগী। পেশায় বক্সার। বছর তেইশের অশোক বলছেন, ‘‘বিজেপি করার অপরাধে বাড়ির লোকদের মারধর করা হয়েছে। ঘরে থাকতে সাহস পাচ্ছি না। তাই অভিযোগ জানাতে এলাম।’’

Advertisement


নিজস্ব চিত্র


দত্তবাগানের বাসিন্দা নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক বিজেপি কর্মীর অভিযোগ বিজেপি-র বিরুদ্ধেই। তিনি বলছেন, ‘‘বিজেপি করাটা ভুল হয়ে গিয়েছে। ঘরে ফিরতে পারছি না। অপ্রীতিকর এই পরিস্থিতিতে স্থানীয় নেতাদের সাহায্য পাচ্ছি না। এলাকার বিজেপি প্রার্থী সব্যসাচী দত্তের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান সাহায্য করতে পারবেন না।’’


সোমবার সল্টলেকে মানিকতলার বিজেপি প্রার্থী কল্যাণ চৌবেও উপস্থিত ছিলেন। তাঁর এলাকার কর্মীদের অবস্থা নিয়ে তিনি অভিযোগ জানাতে এসেছেন। কল্যাণ বলেন, ‘‘এলাকার অনেক মানুষের উপর আক্রমণ করা হয়েছে। এখনও সন্ত্রাস অব্যাহত। রবিবারও মানিকতলার এক কর্মীকে মারধর করা হয়েছে। সব বিষয় নিয়ে কমিশনের কাছে অভিযোগ জানাতে এসেছি। ক্ষতিগ্রস্তদের আবার আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে চাই।’’



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement