×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২০ জুন ২০২১ ই-পেপার

শাহের সভার আগে নেট বিঘ্নিত করার অভিযোগ তুলে রাজভবনে বিজেপি

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৯ জুন ২০২০ ০৯:৪২
পশ্চিমবঙ্গের জনতার উদ্দেশে বেলা ১১টায় অনলাইনে ভাষণ দেওয়ার কথা অমিত শাহের—ফাইল চিত্র

পশ্চিমবঙ্গের জনতার উদ্দেশে বেলা ১১টায় অনলাইনে ভাষণ দেওয়ার কথা অমিত শাহের—ফাইল চিত্র

অমিত শাহের ভার্চুয়াল সভার আগে রাজ্যের নানা অংশে ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যাহত করার চেষ্টা চলছে। এই মর্মে অভিযোগ এনে রাজ্যপালের দ্বারস্থ হচ্ছে বিজেপি। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ন’টার সময় রাজভবনে যাবেন যুবমোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ এবং বিজেপি নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডা।

বিজেপি-র অভিযোগ, ইন্টারনেট পরিষেবার পাশাপাশি বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত করারও চেষ্টা চলছে। নেতৃত্বের অভিযোগের তির তৃণমূল ও রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধেই।

পশ্চিমবঙ্গের জনতার উদ্দেশে আজ বেলা ১১টায় দিল্লি থেকে অনলাইনে ভাষণ দেওয়ার কথা অমিত শাহের। ভার্চুয়াল এই সভার নাম দেওয়া হয়েছে ‘জনসংবাদ র‌্যালি’। এই উপলক্ষে সফটওয়্যারের মাধ্যমে রাজ্যের দু’ হাজার নেতাকর্মীকে যুক্ত করা হবে। থাকবেন রাজ্য নেতৃত্ব-সহ রাঢ় বঙ্গের অধিকাংশ বিজেপি নেতা-কর্মী। পাশাপাশি বিজেপির অন্যান্য জেলাসভাপতি, মণ্ডল সভাপতিরাও অনলাইনে হাজির থাকবেন এই জনসভায়।

Advertisement

আরও পড়ুন: অমিত শাহ অনলাইন আজ, প্রশ্ন মমতার, প্রতিবাদও

বিজেপির উদ্দেশ্য, সামাজিক দূরত্ব মেনে বিভিন্ন পার্টি অফিস-সহ অন্যান্য জায়গায় ফেসবুক লাইভ করা। এ ভাবে প্রায় দু’লক্ষ মানুষের যোগদান করানো সম্ভব হবে বলে আশা বিজেপি নেতৃত্বর।

কিন্তু সেই উদ্দেশ্য ব্যাহত করতেই ইন্টারনেট ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিঘ্নিত করার চেষ্টা চলছে বলে বিজেপি-র অভিযোগ। যাতে শাহের সভা চলাকালীন এই দু’টি পরিষেবা রাজ্যজুড়ে স্বাভাবিক ও নিরবচ্ছিন্ন থাকে, সে বিষয়ে রাজ্যপালের হস্তক্ষেপ চাওয়া হবে।

আরও পড়ুন: সুজিতের এলাকায় সব্যসাচীকে ‘হেনস্থা’, গোলমাল

এই বিষয়টি নিয়ে অবশ্য বিজেপি হৈ চৈ শুরু করেছে সোমবার রাত থেকেই। ইন্টারনেট পরিষেবা বা বিদ্যুৎ সংযোগের কোনও উল্লেখযোগ্য সমস্যা সে সময় ছিল, তা নয়। কিন্তু মঙ্গলবার সকালে যে সমস্যা হতে পারে, সে বিষয়ে আগেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল বিজেপি। ফলে সোমবার রাতেই রাজ্যপালের সময় চাওয়া হয়।

তৃণমূলের দিক থেকে এ বিষয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে এক তৃণমূল নেতার কথায় ভিত্তিহীন অভিযোগের জবাব দিয়ে তার গুরুত্ব বাড়ানোর কোনও প্রয়োজন নেই।

Advertisement