Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ জুন ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

Howrah: হাওড়ার ৪৯টি পার্কের দৈন্য দশা ঘোচাতে বরাদ্দ ৯০ লক্ষ

বর্তমানে অধিকাংশ পার্কই আগাছার জঙ্গল আর ঝোপঝাড়ে ভরে যাওয়ায় মানুষের অগম্য হয়ে উঠেছে। বিকেলে শিশুরা আর সেখানে গিয়ে খেলতে পারে না।

নিজস্ব সংবাদদাতা
০৭ এপ্রিল ২০২২ ০৬:২৫
Save
Something isn't right! Please refresh.
হাওড়া পুরসভা।

হাওড়া পুরসভা।
ফাইল চিত্র।

Popup Close

দীর্ঘ বেশ কয়েক বছরের অবহেলায় বেহাল দশা হাওড়ার ৪৯টি পার্ক ও উদ্যানের। এ বার সেগুলির সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হাওড়া পুরসভাকে ৯০ লক্ষ টাকা দিল রাজ্য সরকার। ওই টাকায় প্রতিটি পার্কের আমূল সংস্কার করা হবে। রাখা হবে কেয়ারটেকারও। তবে সংস্কারের ওই তালিকায় দু’কোটি টাকা ব্যয়ে তৈরি, কোনা এক্সপ্রেসওয়ে সংলগ্ন ‘মা মাটি মানুষ উদ্যান’ পড়ছে না। কারণ, ওই পার্কের উপর দিয়ে কোনা এক্সপ্রেসওয়ের উড়ালপুল যেতে পারে।

হাওড়া পুরসভায় ক্ষমতায় আসার পরে তৃণমূল বোর্ড শহরের ৪৯টি পার্ক ঢেলে সাজিয়েছিল। তাতে কয়েক কোটি টাকা খরচ হয়। কিন্তু সেই বোর্ডের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরে গত চার বছর ধরে কোনও নির্বাচিত বোর্ড না থাকায় পার্কগুলির রক্ষণাবেক্ষণের কাজ কার্যত বন্ধই ছিল। বর্তমানে অধিকাংশ পার্কই আগাছার জঙ্গল আর ঝোপঝাড়ে ভরে যাওয়ায় মানুষের অগম্য হয়ে উঠেছে। বিকেলে শিশুরা আর সেখানে গিয়ে খেলতে পারে না। অনেক পার্ক আবার হয়ে উঠেছে দুষ্কৃতী ও মাদকাসক্তদের আখড়া। রাত হলেই সেখানে বসছে নেশার আসর।

প্রশাসন সূত্রের খবর, হাওড়া পুরসভার অধীনস্থ ৫০টি ওয়ার্ডের ৪৯টি পার্ক নতুন করে সাজাতে ও সেগুলির রক্ষণাবেক্ষণ করতে ৯০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেছে পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর। এ মাসের শেষ থেকেই পার্কগুলির সংস্কার ও সৌন্দর্যায়নের কাজ শুরু করা হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পুর কর্তৃপক্ষ।

Advertisement

হাওড়া পুরসভার চেয়ারপার্সন সুজয় চক্রবর্তী বুধবার পার্কগুলির রক্ষণাবেক্ষণ আর সৌন্দর্যায়ন নিয়ে পার্ক ও উদ্যান দফতরের ইঞ্জিনিয়ার এবং অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেই বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হয়েছে, প্রতিটি পার্কের ভিতরে গজিয়ে ওঠা ঝোপঝাড় কেটে এমন ভাবে সৌন্দর্যায়ন করা হবে, যাতে শিশুরা সেখানে খেলাধুলো করতে পারে। প্রয়াত শিশু সাহিত্যিক, হাওড়ার বাসিন্দা নারায়ণ দেবনাথের নামেও একটি পার্কের নামকরণ করার পরিকল্পনা রয়েছে পুরসভার।

সুজয়বাবু বলেন, ‘‘পার্কগুলির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য চুক্তিভিত্তিক যে পুরকর্মীরা রয়েছেন, তাঁদের এ বার আলাদা করে পরিচয়পত্র দেওয়া হবে। পার্কের রক্ষণাবেক্ষণের কাজ তাঁর ঠিকমতো করছেন কি না, তার উপরে নজরদারিও চালানো হবে।’’ এ দিন এ বিষয়ে চেয়ারপার্সন জানান, তৃণমূলের পুরবোর্ড যখন ছিল, তখনই পার্কগুলিকে চিহ্নিত করে সেগুলির সৌন্দর্যায়ন করা হয়েছিল। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন রক্ষণাবেক্ষণের কাজ না হওয়ায় পার্কগুলির এখন বেহাল দশা। এ বার প্রতিটি পার্কের আবর্জনা সরিয়ে সেগুলির আমূল সংস্কার করা হবে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement