Advertisement
০১ ডিসেম্বর ২০২২
Youth

Man: শিক্ষিকার চেষ্টায় দু’বছর পরে বাড়ি ফিরলেন নিখোঁজ যুবক

আত্মীয়েরা জানান, উচ্চ মাধ্যমিক পাশের পরে চাকরির চেষ্টা করেছিলেন দীপঙ্কর। পাননি। তার জেরে মনমরা হয়ে পড়েছিলেন।

নিখোঁজ যুবককে ফিরিয়ে নিতে হাজির পরিবারের সদস্যরা। চুঁচুড়ায়।

নিখোঁজ যুবককে ফিরিয়ে নিতে হাজির পরিবারের সদস্যরা। চুঁচুড়ায়।

নিজস্ব সংবাদদাতা
চুঁচুড়া শেষ আপডেট: ০১ অগস্ট ২০২২ ০৭:৫১
Share: Save:

দু’বছর নিখোঁজ থাকার পরে এক স্কুল শিক্ষিকার চেষ্টায়, হ্যাম রেডিয়োর হাত ধরে বাড়ি ফিরলেন কলকাতার গার্ডেনরিচের মহেশতলার এক যুবক। বছর চব্বিশের ওই যুবকের নাম দীপঙ্কর হাজরা। কিছু দিন ধরে হুগলি জেলায় চুঁচুড়া স্টেশনে তাঁর দিন কাটছিল। শনিবার রাতে বাড়ির লোকেরা তাঁকে ফিরিয়ে নিয়ে যান।

Advertisement

আত্মীয়েরা জানান, উচ্চ মাধ্যমিক পাশের পরে চাকরির চেষ্টা করেছিলেন দীপঙ্কর। পাননি। তার জেরে মনমরা হয়ে পড়েছিলেন। ২০২০ সালের ২৫ জুন তিনি নিখোঁজ হয়ে যান। তখন লকডাউন চলছিল। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর সন্ধান না মেলায় পরিবারের তরফে গার্ডেনরিচ থানায় নিখোঁজ সংক্রান্ত অভিযোগ দায়ের করা হয়। ওই যুবক জানান, কলকাতা-সহ বিভিন্ন এলাকায় দিন কাটানোর পরে মাস খানেক ধরে তিনি চুঁচুড়া স্টেশনে আশ্রয় নিয়েছিলেন। পেট ভরছিল যাত্রীদের দেওয়া খাবারে।

এর মধ্যে ট্রেন ধরতে চুঁচুড়া স্টেশনে গিয়ে গত বৃহস্পতিবার ওই যুবককে নজরে পড়ে চুঁচুড়ার বাসিন্দা, স্কুল শিক্ষিকা শুভ্রা ভট্টাচার্যের। তিনি ওই যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করেন। যুবকটি প্রথমে কিছু বলতে চাননি। শুক্রবার শুভ্রা ফের তাঁর কাছে যান। যুবকটি তাঁর নাম এবং গার্ডেনরিচের মহেশপুরে বাড়ির কথা বলেন। এর পরেই ওই শিক্ষিকা হ্যাম রেডিওর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। হ্যাম রেডিওর তরফে গার্ডেনরিচ থানা এবং যুবকের বাড়িতে যোগাযোগ করা হয়। ওই রাতেই চুঁচুড়ায় এসে দীপঙ্করকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে যান তাঁর দাদা-বৌদি।

দীপঙ্করের দাদা সোমনাথ হাজরা বলেন, ‘‘নিজেরা অনেক খুঁজেও ভাইকে পাইনি। হ্যাম রেডিও এবং শুভ্রাদির জন্য পেলাম। ওঁদের কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা নেই।’’ ওই যুবককে বাড়ি ফেরাতে পেরে খুশি শুভ্রা। তাঁর কথায়, ‘‘ঘরের ছেলে ঘরে ফিরল, খুব ভাল লাগছে। সহ-নাগরিক হিসেবে আমরা কর্তব্যটুকু পালন করলাম।’’ এর আগেও নিখোঁজ ব্যক্তিকে চেষ্টাচরিত্র করে বাড়ি ফিরিয়েছেন ওই শিক্ষিকা। হ্যাম রেডিওর পক্ষে অম্বরীশ নাগ বিশ্বাস বলেন, ‘‘আমাদের সংস্থার মাধ্যমে এমন বহু মানুষকে উদ্ধার করে বাড়িতে ফেরানো গিয়েছে। এ ক্ষেত্রেও তা করা গেল।’’

Advertisement

দীপঙ্কর জানান, অর্থ উপার্জন করতে না পেরে তিনি মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েছিলেন। তাই বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েন। তবে, এমন কাজ আর করবেন না। বাড়ি ফেরার সময় তাঁর মুখে ছিল হাসি।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.