×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২০ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

পিকে-র বিরুদ্ধে ক্ষোভ, শীলভদ্র দত্তের দেখা পেলেন না জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক

নিজস্ব সংবাদদাতা
ব্যারাকপুর০২ ডিসেম্বর ২০২০ ০৫:০৩
প্রশান্ত কিশোর এবং শীলভদ্র দত্ত— ফাইল চিত্র।

প্রশান্ত কিশোর এবং শীলভদ্র দত্ত— ফাইল চিত্র।

তাঁর ‘ইচ্ছা’র কথা শুনে কথা বলতে গিয়েছিলেন, রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূলের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। কিন্তু ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত সে সময় বাড়িতে না থাকায় দেখা হল না।

মঙ্গলবার সকালে ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর (পিকে)-এর টিম  হাজির হয়েছিল শীলভদ্রের বাড়িতে। সূত্রের খবর, সে ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক জানিয়েছিলেন, তিনি রাজনীতির মানুষ। তাই কর্পোরেট সংস্থার প্রতিনিধি নয়, রাজনীতির মানুষদের সঙ্গেই কথা বলতে তিনি স্বচ্ছন্দ। বিকেলে বারাসতে উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের বৈঠক শেষ করেই তড়িঘড়ি শীলভদ্রের বাড়িতে গিয়েছিলেন জ্যোতিপ্রিয়।

শীলভদ্রের দেখা না পেলেও জ্যোতিপ্রিয় আশাবাদী তিনি দলেই থাকবেন। তিনি বলেন, ‘‘শীলভদ্র আমার দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহকর্মী। তাঁর মান-অভিমান থাকতে পারে। বসে কথা বললেই সব সমস্যা মিটে যাবে। শীলভদ্র দত্ত তৃণমূলে ছিলেন, আছেন, থাকবেন।’’

Advertisement

দল ছাড়ার কোনও ইঙ্গিত শীলভদ্র এখনও দেননি। তবে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে তিনি তৃণমূলের হয়ে দাঁড়াবেন না, সে কথা আগেই বলেছেন। মঙ্গলবারও ফের সে কথা জানিয়ে দিলেন। সকালে পিকে-র টিমের সাথে কথা বলার পরে শীলভদ্র সাংবাদিকদের জানান, তিনি তাঁর অবস্থানে অনড়। তৃণমূলের টিকিটে বিধানসভা ভোটে লড়ছেন না।

আরও পড়ুন: ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে কেটেছে, করোনা নিয়ে মুখ খুলছে উহান

ভোটকুশলী  পিকের সংস্থার কর্মপন্থায় তিনি যে খুশী নন, সে কথাও জানান ব্যারাকপুরের বিধায়ক। সৌজন্য সাক্ষাৎকার করলেও পিকের টিম আসায় তিনি যে খুশী নন, সে কথাও গোপন করেননি। বলেন, ‘‘পিকের টিম না এসে রাজনৈতিক কর্মীরা এলে ভালো হত।’’ সেই সঙ্গে তাঁর ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ মন্তব্য, ‘‘দলের যে বা যারা আমাকে নিয়ে কটু মন্তব্য করছেন, তাঁরা নিজেদের ডুবন্ত জাহাজের আরোহী মনে করলেও তৃণমূল বিধানসভা ভোটে ২০০ আসন পেতে চলছে।’’ সেই সঙ্গে জানান, নির্বাচনে না লড়েও ব্যারাকপুরের মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যেতে চান।

আরও পড়ুন: শুভেন্দু অধিকারী সবং ছাড়তেই উত্তেজনা, তৃণমূল কর্মীর বাড়িতে হামলা

শীলভদ্রের তৃণমূলে থাকার বিষয়ে আশাবাদী জ্যোতিপ্রিয় জানিয়েছেন, মদন মিত্রও টিম  পিকের বিরুদ্ধে মুখ খোলায় তাঁর সঙ্গে কথা বলবেন। আমপান পরবর্তী ১,০০০ কোটি টাকার দুর্নীতি প্রসঙ্গে  সিএজি-কে দেওয়া কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ প্রসঙ্গে জ্যোতিপ্ৰিয়  মুখ খুলতে চাননি। জানান, বিষয়টি তিনি শুনছেন কিন্তু হাতে অর্ডার পাননি। মন্ত্রীর পাশাপাশি তিনি আইনজীবীও। তাই তিনি বিচারাধীন বিষয় নিয়ে বিস্তারিত ও খুঁটিনাটি না জেনে বা না পড়ে মন্তব্য করবেন না।

Advertisement