Advertisement
০৭ ডিসেম্বর ২০২৩

জঞ্জালের স্তূপে মিলল হাড়গোড়

একটি প্লাস্টিকের প্যাকেটে মোড়া শুকনো হাড়গোড় ঘিরে রবিবার চাঞ্চল্য ছড়াল বালির গোস্বামী পাড়ায়। পুলিশ জানিয়েছে, এ দিন সকালে গোস্বামী পাড়ার জোড়া অশ্বত্থতলার কাছে একটি ডাস্টবিনে ওই হাড়গোড় পাওয়া যায়।

—প্রতীকী ছবি

—প্রতীকী ছবি

নিজস্ব সংবাদদাতা
শেষ আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০০:০০
Share: Save:

একটি প্লাস্টিকের প্যাকেটে মোড়া শুকনো হাড়গোড় ঘিরে রবিবার চাঞ্চল্য ছড়াল বালির গোস্বামী পাড়ায়। পুলিশ জানিয়েছে, এ দিন সকালে গোস্বামী পাড়ার জোড়া অশ্বত্থতলার কাছে একটি ডাস্টবিনে ওই হাড়গোড় পাওয়া যায়। এলাকার বাসিন্দাদের থেকে খবর পেয়ে বালি থানার পুলিশ এসে সেগুলি নিয়ে যায়। পরে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালের এক চিকিৎসকে দিয়ে পরীক্ষা করানোর পরে পুলিশ জানায়, প্রাথমিক ভাবে তাদের অনুমান, মেডিক্যালের ছাত্রদের অ্যানাটমি পড়ার কাজে ব্যবহৃত কঙ্কাল কেউ ফেলে দিয়ে গিয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, এ দিন জোড়া অশ্বত্থতলা বাজারের এক মাছ ব্যবসায়ী তাঁর বসার জায়গার পাশে ডাস্টবিনের মধ্যে প্লাস্টিকের প্যাকেটটি দেখতে পান। সেই প্যাকেটের মধ্যে থেকে বেরিয়ে ছিল শুকনো হাড়গোড়। ওই ব্যবসায়ীই খবর দেন স্থানীয় বাসিন্দাদের। ঘটনাটি জানাজানি হতে এলাকায় ভিড় জমে যায। আসে বালি থানার পুলিশ। স্থানীয় বাসিন্দা অমিত দত্ত বলেন, ‘‘প্যাকেটের মধ্যে থাকা হাড়গোড় দেখে মনে হচ্ছিল, সেগুলি মানবদেহের হাড়। আমরা ভয় পেয়ে পুলিশে খবর দিই।’’

পুলিশ জানিয়েছে, হাড়গুলিকে নিয়ে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালের এক চিকিৎসককে দেখানো হয়। তিনি পরীক্ষা করে জানান, হাড়গুলি দেখে মনে হচ্ছে, মেডিক্যালের কোনও ছাত্র ব্যবহার করার পরে সেগুলি ফেলে দিয়ে গিয়েছে। টি কে রায় নামে ওই চিকিৎসক বলেন, ‘‘অ্যানাটমি পড়ার সময়ে মেডিক্যালের ছাত্রদের নরকঙ্কাল কাজে লাগে। হাড়গুলিতে এমন কিছু চিহ্ন রয়েছে, যা দেখে মনে হচ্ছে সেগুলি মানবদেহের কঙ্কাল।’’

হাওড়া সিটি পুলিশের এক কর্তা বলেন, ‘‘উদ্ধার হওয়া হাড়গুলি ফরেন্সিক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।’’ কে বা কারা সেগুলি আবর্জনার স্তূপে ফেলে গেল, তা জানতে তদন্ত শুরু হয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE