Advertisement
২২ জুলাই ২০২৪
Mamata Banerjee

বেহাত হচ্ছে সরকারি জমি, মুখ্যমন্ত্রীর ভর্ৎসনার মুখে আমলা-পুলিশ, নিশানায় ফিরহাদ-বিনীত

ভূমি ও ভূমিসংস্কার দফতর রয়েছে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর হাতে। কয়েক মাস আগে একাধিক জেলার প্রশাসনিক সভাতেও ভূমি দফতরের কাজ নিয়ে উষ্মাপ্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা।

Mamata Banerjee reprimands police and officers in Nabanna meeting on land department work

(বাঁ দিক থেকে) মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম এবং কলকাতার নগরপাল বিনীত গোয়েল। —ফাইল চিত্র।

আনন্দবাজার অনলাইন সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২০ জুন ২০২৪ ১৮:২০
Share: Save:

সরকারি জমি ‘বেহাত’ হওয়া নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হল রাজ্যের আমলা-পুলিশদের। পাশাপাশিই, পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের কাজ নিয়েও বিরক্তি প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। বৃহস্পতিবার নবান্নে সমস্ত পুরনিগমের মেয়র, সমস্ত দফতরের সচিব, অতিরিক্ত সচিব, জেলাশাসক এবং পুলিশকর্তাদের বৈঠকে ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বেশির ভাগই ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দিয়েছিলেন বৈঠকে। নবান্ন সূত্রের খবর, ভূমি দফতরের কর্তাদের উপর ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রশ্ন তুলেছেন, কী ভাবে সরকারি জমি বেহাত হয়ে যাচ্ছে? পুলিশ কেন বিষয়টি দেখছে না, সেই প্রশ্নও বৈঠকে তোলা হয়েছে বলে খবর।

যদিও ওই বৈঠকের আলোচনা নিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে মুখ্যমন্ত্রী কিছু বলেননি। বৈঠকে যাঁরা যোগ দিয়েছিলেন, তাঁরাও মুখ খোলেননি। ফলে সরকারি ভাবে এর কোনও সমর্থন মেলেনি। কিন্তু প্রশাসনে যে ‘নাড়াচাড়া’ পড়েছে, নবান্নের একাধিক সূত্র তা জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, ভূমি ও ভূমিসংস্কার দফতর রয়েছে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর হাতেই। কয়েক মাস আগে একাধিক জেলার প্রশাসনিক সভাতেও ভূমি দফতরের কাজ নিয়ে উষ্মাপ্রকাশ করেছিলেন মমতা। প্রশাসনিক বৈঠকের মঞ্চ থেকে মমতার এ-ও অভিযোগ ছিল, নিচুতলার কিছু সরকারি কর্মীও এ সবের সঙ্গে যুক্ত। ‘ঘুঘুর বাসা’ ভাঙার নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। নবান্ন সূত্রের খবর, সম্প্রতি জেলাভিত্তিক রিপোর্ট জমা পড়েছে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। নবান্নের এক কর্তার বক্তব্য, ‘‘জেলায় প্রশাসনিক বৈঠকে ম্যাডাম যে নির্দেশ দিয়েছিলেন, তা বাস্তবায়িত হয়নি। বদলায়নি পরিস্থিতিও। সে কারণেই তিনি ক্ষুব্ধ।’’ প্রশাসনিক সূত্রের বক্তব্য, কলকাতা শহরেও সরকারি জমি বেহাত হচ্ছে বলে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে খবর রয়েছে। সেই প্রসঙ্গ তুলে কলকাতার পুলিশ কমিশনার বিনীত গোয়েলকেও মুখ্যমন্ত্রী খানিক তিরস্কার করেছেন বলেই প্রশাসনিক সূত্রের দাবি।

নবান্ন সূত্রে এ-ও জানা গিয়েছে, ফিরহাদ হাকিমের হাতে থাকা পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রকের কাজ নিয়েও মুখ্যমন্ত্রী বৃহস্পতিবারের বৈঠকে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। যার মূল বিষয় হল পুর পরিষেবা। ঘটনাচক্রে, সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে দেখা গিয়েছে, শহরে তৃণমূলের জনসমর্থন কমেছে। যা দলের জন্য ‘উদ্বেগজনক’ বলেই মনে করছেন প্রথম সারির নেতারা। কলকাতা পুরসভা এলাকাতেই ৪৭টি ওয়ার্ডে পিছিয়ে রয়েছে তৃণমূল। বিধাননগর, আসানসোল, শিলিগুড়ির মতো ‘কর্পোরেশন’ এলাকাতেও বিজেপি আধিপত্য দেখিয়েছে। অনেকের মতে, পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের কাজ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর ‘অসন্তোষের’ নেপথ্যে রয়েছে লোকসভায় শহুরে এলাকার ফলাফল। শুধু পুরনিগম নয়। জেলায় জেলায় মফস্‌সল শহরগুলিতেও তৃণমূল পিছিয়ে রয়েছে। রাজ্যের মোট ১২১টি পুরসভার মধ্যে ৬৯টিতে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি, দু’টিতে এগিয়ে কংগ্রেস। হাওড়ার মতো পুরনিগম এলাকায় তৃণমূল জিতলেও সেখানে পরিষেবা নিয়ে নাগরিকদের ক্ষোভ রয়েছে। হাওড়া পুরসভায় প্রায় পাঁচ বছর ভোট হয়নি। সেখানে পুরসভার কাজ পরিচালনা করছে প্রশাসকমণ্ডলী। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামী সোমবার সমস্ত পুরসভার চেয়ারম্যানদের নিয়ে বৈঠক ডেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী। চেয়ারম্যানদের পাশাপাশি ডাকা হয়েছে পুরসভার শীর্ষ আধিকারিকদেরও।

নবান্ন সূত্রের খবর, বিদ্যুৎ দফতরের কাজ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী সন্তুষ্ট হলেও বিদ্যুৎ অপচয় নিয়ে তিনি খুশি নন। নবান্নের এক কর্তার কথায়, ‘‘সরকারের বিভিন্ন দফতর খালি হয়ে যাওয়ার পরেও সেখানে আলো জ্বলে, পাখা চলে। কোথাও কোথাও বন্ধ করা হয় না বাতানকূল যন্ত্রও। এর ফলে বিদ্যুতের যেমন অপচয় হচ্ছে, তেমনই সরকারের টাকা অতিরিক্ত খরচ হচ্ছে। তা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।’’ বিদ্যুৎ দফতরের এক কর্তার বক্তব্য, ‘‘আমরা বিদ্যুৎ সরবরাহ করি। কিন্তু সেটা অপচয় হচ্ছে কিনা, তা তো সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতর দেখবে। অফিস শেষের পরেও আলো-পাখা জ্বলে থাকছে, সেটা অনেকাংশে ঠিক। কিন্তু সেটা তো সেই দফতরের আধিকারিকদের খেয়াল রাখতে হবে।’’ ওই কর্তার দাবি, মুখ্যমন্ত্রী বিদ্যুৎ দফতরের কাজের প্রশংসাই করেছেন। প্রসঙ্গত, হলং বনবাংলো পুড়ে যাওয়ার ঘটনা নিয়েই ওই সংক্রান্ত আলোচনা ওঠে বৈঠকে। শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছিল বলেই প্রাথমিক অনুমান। অর্থাৎ, বাংলোয় কোনও পর্যটক বা অতিথি না-থাকলেও বাতানুকূল যন্ত্র বা অন্য কোনও সংযোগ চালু ছিল। সেই সূত্রেই মুখ্যমন্ত্রী সরকারি দফতর এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুতের অপচয় বন্ধ করার প্রসঙ্গটি তোলেন।

তবে বৃহস্পতিবারের বৈঠকে মমতার ‘মূল নিশানা’ ছিল ভূমি দফতরের কাজ। দীর্ঘ দিন ধরে বলে বলেও কেন সরকারি নির্দেশ কার্যকর হচ্ছে না, জমি বেহাত হয়ে যাচ্ছে, জেলাশাসকেরা কেন ‘মনিটরিং’ করছেন না, সেই প্রশ্ন তুলে প্রশাসনকে কড়া বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ঘটনাপ্রবাহ বলছে, লোকসভা ভোট মিটতেই প্রশাসনিক কাজে গতিবৃদ্ধি করতে চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী। এর আগে গোটা মন্ত্রিসভা, সমস্ত দফতরের সচিব, জেলাশাসক, পুলিশকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তার পরে বণিকমহলের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও বিনিয়োগ নিয়ে বৈঠক করেছেন মমতা। সেখানেও তিনি শিল্পপতিদের বলেছেন, কোনও রকম ‘অসুবিধা’ হলে তা সরকারকে সরাসরি জানাতে। অনেকের মতে, ভোটের মধ্যে সে ভাবে প্রশাসনিক কাজ করা যায়নি। ভোট মিটতেই সেই ‘জড়তা’ কাটাতে চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE