Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৭ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

সৈকত শহরে মুক্তমঞ্চ ‘ঢেউ-সাগর’

নিজস্ব সংবাদদাতা
দিঘা ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ০১:১০
যাত্রানালায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মঞ্চ। ছবি: বিশ্বনাথ বণিক

যাত্রানালায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মঞ্চ। ছবি: বিশ্বনাথ বণিক

শিল্প ও বাণিজ্য সম্মেলনে আগত দেশ-বিদেশের অতিথিদের আনন্দ দিতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের জন্য যাত্রানালা ঘাটে সুসজ্জিত মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন, বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ওই জায়গাতেই স্থায়ী সাংস্কৃতিক মঞ্চ তৈরি করার কথা ঘোষণা করলেন। শুধু তাই নয়, এ দিন প্রস্তাবিত ওই মঞ্চের নামকরণও করলেন তিনি। জানালেন মঞ্চের নাম হবে ‘ঢেউ সাগর’। মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে এমন উপহার পেয়ে খুশি স্থানীয় সংস্কৃতিপ্রেমী থেকে পর্যটকেরাও।

সূত্রের খবর, যাত্রানালায় নতুন ওই সাংস্কৃতিক চর্চাকেন্দ্রে সপ্তাহ শেষে শনি ও রবিবার পর্যটক সহ স্থানীয় বাসিন্দারা সংস্কৃতি চর্চা করতে পারবেন। সংস্কৃতি চর্চার এমন জায়গা পেয়ে দিঘা, কাঁথি-রামনগরের বিভিন্ন সাং‌স্কৃতিক প্রতিষ্ঠান খুশি। নৃত্যশিল্পী কল্যাণ দাস বলেন, ‘‘এটা মুখ্যমন্ত্রীর অত্যন্ত ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি। স্থানীয় সাংস্কৃতিক প্রতিভা সম্পন্ন ছেলেমেয়েরা দেশ-বিদেশের পর্যটকদের সান্নিধ্যে আসার সুযোগ পেতে পারে। এতে পারস্পরিক সাংস্কৃতিক মেলবন্ধন আরও দৃঢ় হবে।’’ কাঁথি শহরের নাট্যকর্মী সুমিতা সিংহর কথায়, ‘‘দিঘা মানেই ছিল সমুদ্রস্নান আর খানাপিনা। এখন সেখানে সংস্কৃতি চর্চা এমন সুযোগ অনেককেই আনন্দ দেবে। সৈকত শহরে মুখ্যমন্ত্রীর এমন উদ্যোগ প্রশংসনীয়।’’ সঙ্গীতশিল্পী অয়ন জানা বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রীর এমন উদ্যোগ এলাকার সংস্কৃতি চর্চার পথ আরও প্রশস্ত করবে।’’

প্রসঙ্গত, দিঘার যাত্রানালা ঘাটের কাছে একটি পার্ক বানিয়েছে দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদ (ডিএসডিএ)। শিল্প সম্মেলন উপলক্ষে সেখানে সাংস্কৃতিক মঞ্চ তৈরি হয়েছিল। বিভিন্ন শিল্পী সমন্বয়ে গত দু’দিন ধরে সেখানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পর কীভাবে ওই সাংস্কৃতিক মঞ্চ তৈরি করা হবে এবং কী ভাবে তা সংস্কৃতিপ্রেমীদের ব্যবহার করতে দেওয়া হবে তা নিয়ে পরিকল্পনা করছে জেলা প্রশাসন। এই বিষয়ে জরুরি বৈঠকও ডাকা হতে পারে বলে দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদ সূত্রে খবর। স্থানীয় সাংসদ এবং ডিএসডিএ-র চেয়ারম্যান শিশির অধিকারী বলেন, ‘‘যাত্রানালায় সাংস্কৃতিক চর্চা কেন্দ্র হবে বলে ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তার ভিত্তিতে আমরা দ্রুত পদক্ষেপ করছি।’’

Advertisement

আরও পড়ুন

Advertisement