Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

করোনা পরীক্ষায় গতি

পাশে সাংসদ দেব, কোটি টাকা সাহায্য

বরুণ দে
মেদিনীপুর ০১ মে ২০২০ ০২:৪০
দেব। ফাইল চিত্র।

দেব। ফাইল চিত্র।

মেদিনীপুর মেডিক্যালে করোনা পরীক্ষা শুরু হয়েছে মার্চের শেষে। এখন দিনে ৬০টি নমুনা পরীক্ষার সামর্থ্য রয়েছে মেডিক্যালের। এ বার তা বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হতে চলেছে। এ জন্য কেনা হচ্ছে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি। ব্যয় ৩১ লক্ষ ৩২ হাজার ৩৩৬ টাকা।

করোনা মোকাবিলায় ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনকে সাংসদ তহবিল থেকে ৫০ লক্ষ টাকা দিয়েছেন ঘাটালের তৃণমূল সাংসদ দেব। যন্ত্রপাতি কিনতে তা-ই ব্যয় করা হচ্ছে। জানা গিয়েছে, মেডিক্যাল থেকে জেলা প্রশাসনের কাছে ওই সব যন্ত্রপাতি কেনার আর্জি জানানো হয়। দ্রুত সম্মতি দেন জেলাশাসক তথা করোনা মোকাবিলায় জেলাস্তরে গঠিত টাস্ক ফোর্সের চেয়ারম্যান রশ্মি কমল। জেলা থেকে যন্ত্রপাতি কেনার বরাত দেওয়া হয়েছে। করোনা মোকাবিলার সাজ-সরঞ্জাম কিনতে জেলাস্তরে গঠিত কমিটির চেয়ারম্যান তথা অতিরিক্ত জেলাশাসক উত্তম অধিকারী মানছেন, ‘‘মেডিক্যাল কলেজ কয়েকটি যন্ত্র চেয়েছিল। কিনে দেওয়া হচ্ছে।’’ সূত্রের খবর, দেব জেলা প্রশাসনকে আরও ৫০ লক্ষ টাকা দেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছেন।

দেব বলেন, ‘‘৫০ লক্ষ করে দু’বারে মোট এক কোটি টাকা আমার জেলা প্রশাসনকে দেওয়া রয়েছে। চিকিৎসার খুঁটিনাটি বিষয়গুলি ডাক্তাররা আমার চেয়ে ভাল বুঝবেন। তাই বিষয়টি আমি প্রশাসন এবং ডাক্তারদের উপরই ছেড়ে দিয়েছি।’’ তৃণমূলের এই তারকা-সাংসদ জুড়ছেন, ‘‘পিপিই কিট হোক কিংবা টেস্ট কিট বা অন্য কোনও সামগ্রী, আমার ওই টাকা থেকে জেলা প্রশাসন কিনতে পারে। এই মুহূর্তে বিশ্বের প্রতিটি দেশের একটাই লক্ষ্য, যত বেশি সংখ্যক পরীক্ষার মাধ্যমে করোনা পজ়িটিভদের চিহ্নিত করে চিকিৎসা শুরু করা। সেটাই নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি।’’

Advertisement

মেদিনীপুর মেডিক্যালের অধ্যক্ষ পঞ্চানন কুণ্ডু মানছেন, ‘‘নতুন যন্ত্রপাতি আসছে। এতে করোনা পরীক্ষার হার আরও বাড়বে।’’ মেডিক্যালে পশ্চিম মেদিনীপুরের পাশাপাশি বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, বিষ্ণুপুর এবং নন্দীগ্রাম স্বাস্থ্য জেলার নমুনা পরীক্ষা হয়। সম্প্রতি এক নির্দেশিকায় রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, মেদিনীপুর মেডিক্যালে ৬০টি নমুনা পরীক্ষার সীমা অতিক্রান্ত হলে বাড়তি নমুনা নাইসেডে পাঠানো যেতে পারে। সূত্রের খবর, ওই সব যন্ত্রপাতি চলে এলে দিনে ১০০-১২০টি নমুনা পরীক্ষা করাও সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন

Advertisement