×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২০ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

দুই বাড়িতে হামলা, একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তৃণমূল-বিজেপির

নিজস্ব সংবাদদাতা
নারায়ণগড়২৪ নভেম্বর ২০২০ ১৮:৩৩
হাসপাতালে আহতরা। নিজস্ব চিত্র।

হাসপাতালে আহতরা। নিজস্ব চিত্র।

এক জন তৃণমূল করেন। অন্য জন, বিজেপি। তাঁদের বাড়িও পাশাপাশি। সোমবার রাতে ওই দুই নেতার বাড়িতেই হামলা চালানোর অভিযোগ উঠল তাঁদের নিজেদের দলের বিরুদ্ধে। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার নারায়ণগড় থানার মেটালা গ্রামের এই অভিযোগ এবং পাল্টা-অভিযোগে উত্তপ্ত জেলার রাজনীতি। পরিস্থিতি সামলাতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করতে হয়েছে।

বিজেপি নেতা প্রদীপ মিদ্দ্যার দাবি, কালীপুজোর সময় এলাকায় এসেছিলেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেই সময় চকনানুয়া গ্রামে তিন বিজেপি কর্মীকে মারধর করেছিল তৃণমূল। তারই প্রতিবাদে সোমবার মিছিল করা হয় এলাকায়। অভিযোগ, রাতে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা হামলা চালিয়ে প্রদীপের বাড়িতে। তাঁর দেড় বছরের মেয়েকেও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। প্রদীপের কথায়, ‘‘আমার স্ত্রী এবং মাকেও মারধর করেছে ওরা। ওঁদের নারায়ণগড় হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়েছে।’’

বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাশের অভিযোগ, সন্ত্রাসের বাতাবরণ তৈরি করছে তৃণমূল। পুলিশের উপস্থিতিতে হামলা হয়েছে। পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। শমিত বলেন, ‘‘মণ্ডল নেতৃত্ব এলাকায় গিয়েছেন। কয়েকদিনের মধ্যে আমিও যাব নারায়ণগড়ে।’’

Advertisement

তৃণমূল যদিও এই হামলার কথা অস্বীকার করেছে। তারা পাল্টা বিজেপি-র বিরুদ্ধে তাদের দলের বুথ সভাপতির বাড়িতে হামলার অভিযোগ এনেছে। তৃণমূলের ব্লক সভাপতি মিহির চন্দ্র বলেন, ‘‘মিছিলের নামে বিজেপি হামলা চালিয়েছে আমাদের এক বুথ সভাপতির বাড়িতে। তৃণমূলের কেউ কোনও বিজেপি কর্মীর বাড়িতে গিয়ে হামলা বা মারধর করেনি। পুলিশকে বলেছি ঘটনার তদন্ত করতে।’’

পরিস্থিতির উত্তাপ বাড়তে থাকায় এলাকায় যদিও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে পুলিশের দাবি, এখনও কোনও লিখিত অভিযোগ জমা পড়েনি। অভিযোগ পেলে তার ভিত্তিতে তদন্ত করা হবে।

Advertisement