×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ জুন ২০২১ ই-পেপার

আঁধারে আলো ফোটাবে গুটিপিসি

নিজস্ব সংবাদদাতা
বহরমপুর ২৮ জানুয়ারি ২০১৯ ০৪:২৫
 গুটি পিসি।  নিজস্ব চিত্র

গুটি পিসি। নিজস্ব চিত্র

ভোটার তালিকায় পুরুষ-মহিলার আনুপাতিক হার বৃদ্ধিতে রাজ্যের শীর্ষে রয়েছে মুর্শিদাবাদ। যুব ভোটারের ক্ষেত্রেও তালিকায় প্রথম নাম এ জেলার। দু’টি ক্ষেত্রে শীর্ষস্থান দখল করে দু’দিন আগেই জাতীয় ভোটার দিবসের অনুষ্ঠানে জোড়া পুরস্কার পেয়েছে মুর্শিদাবাদ।

এ বার দৃষ্টি-প্রতিবন্ধী ভোটারদের ভোটগ্রহণ কেন্দ্র ও ভোটদান প্রক্রিয়া বোঝাতে তথ্যচিত্র, বিপম্যাট ও মোবাইল অ্যাপস তৈরি করল মুর্শিদাবাদ। জেলাশাসক পি উলাগানাথন বলেন, ‘‘দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের ভোটগ্রহণ কেন্দ্র ও ভোট প্রক্রিয়া সম্পর্কে ধারণা দিতে বিপম্যাটের সাহায্যে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। বিভিন্ন ব্লক অফিস ও দৃষ্টি প্রতিবন্ধি স্কুলে বিপম্যাট বসিয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়াও শুরু হতে চলেছে।’’

প্রশাসনের দাবি, বিপম্যাটের বিষয়টি নিয়ে মোবাইল অ্যাপস করা হয়েছে। বিষয়টি জানানো হয়েছে কমিশনকেও। সাহস জুগিয়েছে তারাও। বিপম্যাট আদতে একটি শ্রবণ যন্ত্র। হাতে রিমোটের আদলে ‘ভোট প্রশিক্ষণ যন্ত্র’। পথ অনুসারক বিপম্যাট ধরে এগিয়ে চলেছেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ভোটার। পথ অনুসারক বিপম্যাট ধরে এগোতেই যেখানে এক বার বিপ শব্দ হবে, সেখানে দাঁড়িয়ে পড়বেন দৃষ্টিহীন ভোটার। তার পর, বিস্তারিত জানার জন্য হাতে থাকা ভোট প্রশিক্ষণ যন্ত্রে এক নম্বর বোতামে চাপ দেবেন। দু’বার বিপ শব্দ কানে গেলেই ভোট প্রশিক্ষণ যন্ত্রের দু’নম্বর বোতামে টিপ দিলেই দ্বিতীয় পোলিং অফিসারের বিস্তারিত কাজ জানতে পারবেন। একে একে, এগোতে থাকলে তৃতীয় পোলিং অফিসার, প্রিসাইডিং অফিসার, ভোটগ্রহণ কেন্দ্র সম্পর্কে নানা তথ্য জানতে পারবেন। পথ অনুসারক বিপ ম্যাটে সাতটি বক্স থাকবে। ১-৬ নম্বর বক্সে বিপ শব্দ হবে। প্রতিনিধিরা সেই শব্দ অনুসারে এগিয়ে যাবেন এবং ভোটগ্রহণকেন্দ্র ও ভোটপ্রক্রিয়া সম্পর্কে ধারণা পাবেন। আর সাত নম্বর বক্সে দাঁড়িয়ে এই প্রশিক্ষণের উপর ক্যুইজ হবে।এ ভাবে বিপম্যাটের মাধ্যমে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি ও নতুন ভোটারদের প্রশিক্ষণ দেবে মুর্শিদাবাদ জেলা প্রশাসন। এ বিষয়ে একটি তথ্য চিত্র তৈরি করা হয়েছে। তৈরি করা হয়েছে মোবাইল অ্যাপস। জেলাপ্রশাসনের দাবি, জেলায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ভোটার ২০ হাজার ২১১ জন। তাঁরা অন্যের সাহায্যে ভোট গ্রহণ কেন্দ্রে ভোট দিতে যান। কিন্তু সাধারণ ভোটারের মতো ভোট গ্রহণ কেন্দ্র বা ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া সম্পর্কে তাঁদের ধারণা থাকে না। সেই ধারণা দিতেই গুটি পিসির ‘সহজপাঠ’ নাম দিয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Advertisement
Advertisement