Advertisement
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Accidental Death

বাইক দুর্ঘটনায় মৃত্যু মায়ের, কোল থেকে ছিটকে গেল শিশু! দেখতে গিয়ে দুর্ঘটনার মুখে আত্মীয়রা

একটি মোটরবাইকে করে যাচ্ছিলেন স্বামী, স্ত্রী এবং তাঁদের চার বছরের শিশু। আত্মীয়ের বাড়ি থেকে বাড়ি ফিরছিলেন তাঁরা। যাত্রিবাহী বাসের সঙ্গে সংঘর্ষে মৃত্যু হয় মহিলার। আহত হন স্বামী-সন্তান।

Woman died after fell from bike her husband and son injured

বাসের ধাক্কায় বাইক চালক ও তাঁর স্ত্রী রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন। কোল থেকে ছিটকে পাশের ফুটপাতে পড়ে যায় শিশুটি। —প্রতীকী চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কান্দি শেষ আপডেট: ০৩ মে ২০২৩ ১৪:৩২
Share: Save:

পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল এক মহিলার। সেই খবর পেয়ে তাঁকে দেখতে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়লেন আত্মীয়রা। মঙ্গলবার ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের কান্দিতে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, একটি মোটরবাইকে করে যাচ্ছিলেন স্বামী, স্ত্রী এবং তাঁদের চার বছরের শিশু। মঙ্গলবার রাতে এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে বাড়ি ফিরছিলেন তাঁরা। কান্দির কাছে একটি যাত্রিবাহী বাসের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় ওই মোটরবাইকের। বাসের ধাক্কায় বাইক চালক ও তাঁর স্ত্রী রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন। কোল থেকে ছিটকে পাশের ফুটপাতে পড়ে যায় শিশুটি। ওই সময় বাসের পিছনের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় ওই মহিলার। গুরুতর জখম হন মহিলার স্বামী। আহত হয় শিশুটিও। অন্য দিকে, ওই দুর্ঘটনার খবর পেয়ে দেহ নিতে আসার আসার পথে রাত ১০টা নাগাদ দুর্ঘটনার কবলে পড়েন মৃতার পরিজনেরাও। বাইক এবং টোটোর মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত মোট ৪ জন। পর পর দু’টি দুর্ঘটনায় একাধিক আহত হওয়া এবং মৃত্যুর ঘটনায় শোকস্তব্ধ ওই পরিবার।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে খবর, মৃতার নাম লাজিনা বিবি (২৫)। মঙ্গলবার রাতে মুর্শিদাবাদের কান্দি থানার ডাকবাংলো মোড়ে রাজ্য সড়কে দুর্ঘটনা হয়। ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় বাইক আরোহী মহিলার। আহত হন আরও দুইজন। মহিলার স্বামী সাদ্দাম আলি এবং তাঁদের চার বছরের শিশু আবেদ আলি আহত হন। এঁদের বাড়ি বড়ঞা থানার শ্রীহট্ট গ্রামে । গুরুতর আহত অবস্থায় বাবা এবং শিশুটি কান্দি মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। লাজিনার দেহ ময়নাতদন্তের জন্য কান্দি মহকুমা হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE