Advertisement
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
NIA Investigation in Ramnavami Chaos

শিবপুর, রিষড়ায় রামনবমীর মিছিলে অশান্তি, এফআইআর দায়ের করে তদন্ত শুরু করল এনআইএ

গত ২৭ এপ্রিল হাই কোর্ট হাওড়ার শিবপুর, হুগলির রিষড়া-সহ রাজ্যের কয়েকটি এলাকায় হিংসার ঘটনা নিয়ে এনআইএ তদন্তের নির্দেশ দেয়। তার পর এফআইআর দায়ের করে তদন্ত শুরু করল এনআইএ।

File image of Ramnavami Rally

রামনবমীর মিছিলে অশান্তির ঘটনার তদন্ত শুরু করে দিল এনআইএ। — প্রতীকী ছবি।

আনন্দবাজার অনলাইন সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১১ মে ২০২৩ ১২:৩৪
Share: Save:

রামনবমীর শোভাযাত্রায় হাওড়া এবং হুগলিতে অশান্তির ঘটনায় এফআইআর দায়ের করেছে এনআইএ। তদন্ত শুরু করতে বৃহস্পতিবার তা আদালতে পেশ করে তদন্তকারী সংস্থা। কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশে হাওড়ার শিবপুরে একটি, হুগলির শ্রীরামপুরে দু’টি, রিষড়ার একটি এবং উত্তর দিনাজপুরের ডালখোলায় রামনবমীর মিছিলে গোলমালের ঘটনার প্রেক্ষিতে একটি এফআইআর দায়ের করেছে এনআইএ।

রামনবমীর মিছিল ঘিরে অশান্তির ঘটনায় হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এনআইএ-কে দিয়ে তদন্তের দাবিতে হাই কোর্টে জনস্বার্থ মামলা করেছিলেন তিনি। গত ১০ এপ্রিল শুনানির দিন হাই কোর্টে এনআইএ জানিয়েছিল, তারা ওই অশান্তির ঘটনাগুলির তদন্ত করতে প্রস্তুত। গত ২৭ এপ্রিল তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি টিএস শিবজ্ঞানম এবং বিচারপতি হিরণ্ময় ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ হাওড়ার শিবপুর, হুগলির রিষড়া-সহ রাজ্যের কয়েকটি এলাকায় হিংসার ঘটনা নিয়ে এনআইএ তদন্তের নির্দেশ দেয়। আদালত রাজ্যকে নির্দেশ দেয় যেন দু‌’সপ্তাহের মধ্যে মামলা সংক্রান্ত সমস্ত নথি এনআইএ-কে হস্তান্তর করে। বৃহস্পতিবার আদালতে এনআইএ জানাল, তারা এফআইআর দায়ের করে আনুষ্ঠানিক ভাবে তদন্ত আরম্ভ করে দিয়েছে।

তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি টিএস শিবজ্ঞানম এবং বিচারপতি হিরণ্ময় ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ পর্যবেক্ষণে জানিয়েছিল, কারা এই অশান্তির ঘটনায় জড়িত এবং কারা উস্কানি দিয়েছে, তা জানা রাজ্য পুলিশের পক্ষে সম্ভব নয়। কেন্দ্রীয় সংস্থাকে দিয়ে তদন্ত প্রয়োজন। হাই কোর্টের এ-ও পর্যবেক্ষণ ছিল, পুলিশের রিপোর্টে স্পষ্ট যে, অশান্তি হয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE