×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

অভিষেক-অনীত বৈঠক

কৌশিক চৌধুরী
শিলিগুড়ি ২০ জানুয়ারি ২০২১ ০৬:১৫
—ফাইল চিত্র

—ফাইল চিত্র

বিধানসভা ভোটের প্রার্থী ঠিক করা নিয়ে কার্যত চুপচাপ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করলেন জিটিএ চেয়ারম্যান অনীত থাপা। মোর্চা সূত্রের খবর, কলকাতা থেকে টেলিফোন পেয়ে গত সোমবার বিকেলের পর অনীত বিমানে কলকাতা যান। মঙ্গলবার অভিষেকের সঙ্গে জিটিএ চেয়ারম্যানের বৈঠক হয়। সেখানে পাহাড়ের তিনটি আসনে প্রার্থী দেওয়া নিয়েই মূলত আলোচনা হয়েছে। আজ, বুধবার বিকেলে অনীতের কলকাতা থেকে শিলিগুড়ি ফেরার কথা রয়েছে।


গত লোকসভা ভোটে ঘাসফুলের প্রতীকে প্রার্থী হন মোর্চার অমর সিংহ রাই। ঠিক ছিল, বিধানসভায় মোর্চার প্রার্থীরা ভোটে লড়বেন। তৃণমূল সমর্থন করবে। কিন্তু বিমল গুরুং প্রকাশ্যে আসায় পরিস্থিতি বদলেছে। মোর্চার দুই পক্ষই প্রার্থী দিয়ে ভোটে লড়াইয়ে দাবিদার। মধ্যপন্থার রাস্তা খুঁজতে বৈঠক হতে পারে বলে খবর। তবে এখনও সমাধান মেলেনি। কিছু দিনের মধ্যেই বিমল গুরুংয়ের সঙ্গেও তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের বৈঠকের সম্ভাবনা রয়েছে। দু’পক্ষে বৈঠক করে সমাধান সূত্র খোঁজার কাজ শুরু করলেন অভিষেক। প্রক্রিয়ায় মধ্যে রয়েছে পিকে-র টিমও।


বৈঠক নিয়ে তৃণমূল তো বটেই মোর্চার কেউ মন্তব্য করেননি। অনীত থাপা ফোন ধরেননি। তবে জিটিএ চেয়ারম্যানের ঘনিষ্ঠ মোর্চা নেতা জানান, ২০১৭-এ পাহাড়ের হাল ধরেন বিনয় তামাং, অনীত থাপা। পাহাড়কে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরানো হয়। ঠিক হয়, মোর্চাই বিধানসভায় লড়বে। তিনি বলেন, ‘‘আমরা সেই পথেই রয়েছি।’’

Advertisement


তৃণমূল সূত্রের খবর, পাহাড়ের তিনটি আসনের মধ্যে দার্জিলিং বিজেপির দখলে, কার্শিয়াং ও কালিম্পং মোর্চার। কার্শিয়াংয়ের রোহিত শর্মা রয়েছেন অনীত, বিনয়দের শিবিরে। কালিম্পংয়ের সরিতা রাই গুরুং শিবিরে। এখন দুই শিবিরে আসন ভাগ হলেও একটি আসন নিয়ে সমস্যা থাকছে। তা হল দার্জিলিং। অর্থাৎ, বিমল গুরুংয়ের খাসতালুক। আবার বিনয় তামাংয়েরও নিজের এলাকা।


যদি শেষ পর্যন্ত কার্শিয়াং অনীত, কালিম্পং বিমলকে দেওয়া সম্ভব হয়ও, দার্জিলিং নিয়ে প্রশ্ন থাকছেই। সে ক্ষেত্রে দার্জিলিং আসনে দুই পক্ষের মতামত নিয়ে নিরপেক্ষ কাউকে প্রার্খী করার সম্ভাবনাও রয়েছে বলে সূত্রের খবর। বিধানসভা উপনির্বাচনে বিনয় তামাং প্রার্থী হন। কিন্তু তিনি গত সপ্তাহেই বলেন, তিনি আর ভোটে লড়বেন না।


গুরুংপন্থীরা আবার তরাই-ডুয়ার্সের ৩-৪টি আসনের দাঁড়ানোর ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তাঁদের বুঝিয়ে বিরত রাখার চেষ্টা হবে বলে তৃণমূল নেতৃত্ব ঠিক করেছেন। এই ফর্মুলা দুই শিবির আবার মানবে কি না, তা নিয়েও তৃণমূলে সংশয় রয়েছে। তাই অনীতদের মনোভাব বুঝতেই অভিষেক তাঁকে কলকাতা ডেকে পাঠান। মোর্চা সূত্রে খবর, অনীত তিনটি আসনেই লড়াইয়ের কথা বলেছেন। কিছু দিনের মধ্যে ফের দুই পক্ষের বৈঠক হবে ঠিক হয়েছে।


আবার বিমল গুরুং, বিনয় তামাংদের তৃণমূলের হয়ে প্রচারের মধ্যেই সম্প্রতি বিজেপিতে যোগদান শুরু হয়েছে পাহাড়ে। গত সপ্তাহে একদা গুরুংয়ের ঘনিষ্ঠ তিন জন মোর্চা নেতা গেরুয়া দলে যোগ দেন। গত সোমবার পদত্যাগের পর তিলকচন্দ্র রোকাও সেই পথে হাঁটতে পারেন বলে অনুমান করা হচ্ছে। এই পরিস্থিতি নিয়ে কলকাতায় দুই নেতার মধ্যে কথাবার্তা হয়েছে বলেও মোর্চা সূত্রের খবর।

Advertisement