Advertisement
২৫ জুন ২০২৪

নয়া জেলা জজ প্রসেনজিৎ

জলপাইগুড়ি বেঞ্চের বিচারবিভাগীয় এক্তিয়ারে আপাতত উত্তরবঙ্গের পাঁচ জেলা থাকছে। বেঞ্চের কাজ শুরু হয়ে গেলে মালদহ এবং দুই দিনাজপুরকে অর্ন্তভুক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। মামলার ক্ষেত্রে বেঞ্চের এক্সক্লুসিভ এক্তিয়ার থাকছে। অর্থাত বেঞ্চের কাজ শুরুর পরে উত্তরবঙ্গের সব মামলা জলপাইগুড়িতেই ফাইল করতে হবে।

ফাইল চিত্র।

ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
জলপাইগুড়ি শেষ আপডেট: ১৩ জুলাই ২০১৮ ০৮:২০
Share: Save:

আন্দামানে কলকাতা হাইকোর্টের সার্কিট বেঞ্চের রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব সামলানো প্রসেনজিৎ বিশ্বাস জলপাইগুড়ি জেলা জজের দায়িত্ব গ্রহণ করতে চলেছেন। জলপাইগুড়িতে সার্কিট বেঞ্চের কাজ শুরু করতে হাইকোর্টের এটিই প্রথম প্রশাসনিক পদক্ষেপ বলে মনে করছে রাজ্যের আইনবিভাগ।

জলপাইগুড়ি বেঞ্চের বিচারবিভাগীয় এক্তিয়ারে আপাতত উত্তরবঙ্গের পাঁচ জেলা থাকছে। বেঞ্চের কাজ শুরু হয়ে গেলে মালদহ এবং দুই দিনাজপুরকে অর্ন্তভুক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। মামলার ক্ষেত্রে বেঞ্চের এক্সক্লুসিভ এক্তিয়ার থাকছে। অর্থাত বেঞ্চের কাজ শুরুর পরে উত্তরবঙ্গের সব মামলা জলপাইগুড়িতেই ফাইল করতে হবে।

গত সোমবার উত্তরকন্যায় জলপাইগুড়ি জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, ১৭ অগস্ট জলপাইগুড়িতে সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন হবে। মাস চারেক ধরেই জলপাইগুড়িতে সার্কিট বেঞ্চের অস্থায়ী পরিকাঠামো সংস্কার করে সাজিয়ে তোলার কাজ চলছে। গত একমাসের মধ্যে দু’বার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জ্যোর্তিময় ভট্টাচার্য সহ অন্য বিচারপতি ও আধিকারিকরা পরিদর্শন করেছেন। আগামী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে সব কাজ সেরে ফেলার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। এ দিন বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়িতে এসেছিলেন রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক। এ দিন তিনি জানান, হাইকোর্টে নতুন ১৬ জন বিচারপতি নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, দ্রুত তা শেষও হয়ে যাবে। বেঞ্চের তথ্য প্রযুক্তির পরিকাঠামো তৈরির দায়িত্বে রয়েছে পূর্ত দফতরের আইটি বিভাগ। সেই দফতরের আধিকারিকদের সঙ্গেও এ দিন আইনমন্ত্রী বৈঠক করেছেন।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

Highcourt District judge Jalpaiguri
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE