×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

‘জয় শ্রীরাম’ বলিয়ে কান ধরে ওঠবোস, গ্রেফতার অভিযুক্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা 
তুফানগঞ্জ ২৯ জুন ২০১৯ ০৩:৫৭
আজগার আলি।

আজগার আলি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যাওয়া একটি ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে, এক ব্যক্তিকে ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে বাধ্য করছেন আর এক ব্যক্তি। তার পরে তাঁকে কান ধরে ওঠবোস করানো হচ্ছে। ৩০ মে এই ভিডিয়োটি ভাইরাল হয়েছিল। তখন জানা যায়, আফুসি আলি নামে এক ব্যক্তি আজগার আলি নামে এক ব্যক্তির উপরে জোর করেছেন। ৩১ মে বিজেপি থানায় অভিযোগ করে। তাদের দাবি, আফুসির সঙ্গে বিজেপির কোনও সম্পর্ক নেই। বরং বিজেপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার করতে তৃণমূলের কর্মীরা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে দাবি করে কেন্দ্রীয় শাসক দল। বিজেপি আফুসিকে গ্রেফতারের দাবিও করেছিল। তবে তৃণমূলের পাল্টা দাবি, এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপিই জড়িত। ঘটনার স্রোত তাদের বিরুদ্ধে যাচ্ছে দেখে এখন বিজেপি ওই ভিডিয়োর সঙ্গে সম্পর্ক অস্বীকার করছে বলে অভিযোগ করে তৃণমূল। এই ভিডিয়োটির সত্যাসত্য আনন্দবাজার খতিয়ে দেখেনি।

তুফানগঞ্জ পুলিশ সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার আফুসিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার তাঁকে আদালতে তোলা হয়। বিচারক তাঁকে তিন দিনের জেল হেফাজত দিয়েছেন। এত দিন পরে কেন গ্রেফতার করা হল? তুফানগঞ্জ মহকুমার এসডিপিও জ্যাম ইয়াং জিম্বা জানিয়েছেন, অভিযুক্ত এত দিন পলাতক ছিলেন।

ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে, আফুসি আজগারকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম আর না নিতে জোর করছেন। সেই সঙ্গে শুধু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নাম মুখে আনতে বলা হচ্ছে। তুফানগঞ্জ বিধানসভায় বিজেপির পর্যবেক্ষক উৎপল দাস বলেন, ‘‘৩০ মে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘জয় শ্রীরাম’ বলে কান ধরে ওঠবস করানোর বিষয়টি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। ঘটনাটি তুফানগঞ্জ থানার ধলপল এলাকায় নাটকীয় ভাবে করা হয়।’’ তাঁর দাবি, ‘‘বিজেপিকে কলুষিত করবার জন্য তৃণমূল অন্যায় পদক্ষেপ করেছে। আমি তুফানগঞ্জ থানায় এবং মহকুমা শাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছি।’’

Advertisement

তৃণমূলের কোচবিহার জেলার প্রাক্তন সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, ‘‘এই ঘটনার সঙ্গে সম্পূর্ণ ভাবে জড়িত বিজেপিই। তারাই এই এই ভিডিয়ো বানিয়েছে। এর আগেও এরকম কাজ আরও বিজেপি করেছে। সাধারণ জনগণের কাছে বিষয়টি ছড়িয়ে গেলে তারা বিপদে পড়েছে। এখন বাঁচবার জন্য অন্যের ঘাড়ে দোষ দিয়ে ধোয়া তুলসী পাতা হবার চেষ্টা করছে বিজেপি।’’

Advertisement