Advertisement
২৪ জুলাই ২০২৪
Chopra clash

চোপড়ায় চা-বাগানের জমি দখলকে কেন্দ্র করে গুলি চলার অভিযোগ, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত অন্তত ২০

দু’পক্ষ যখন দু’দিকে জমায়েত করে, সেই সময় জমি মাফিয়ারা পাখিমারা বন্দুক থেকে গুলি চালায় বলে অভিযোগ। আরও অভিযোগ, সেই সময় পুলিশও উপস্থিত ছিল ঘটনাস্থলে। এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায়।

পরিত্যক্ত চা-বাগানের জমি দখল ঘিরে সংঘর্ষ।

পরিত্যক্ত চা-বাগানের জমি দখল ঘিরে সংঘর্ষ। — নিজস্ব চিত্র।

আনন্দবাজার অনলাইন সংবাদদাতা
চোপড়া (উত্তর দিনাজপুর) শেষ আপডেট: ২২ জুন ২০২৪ ১৭:৪৯
Share: Save:

পরিত্যক্ত চা-বাগানের জমির দখল নেওয়াকে কেন্দ্র করে গুলি চলল উত্তর দিনাজপুরের চোপড়ায়। অভিযোগ, ছর্‌‌রা গুলিতে আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন শ্রমিক। পুলিশের সামনেই গুলি চালানোর অভিযোগ। ঘটনায় চাঞ্চল্য চোপড়া থানার দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের নিচাখালিতে। আহতদের উদ্ধার করে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। যদিও গুলি চলার কোনও প্রমাণ পায়নি বলে জানিয়েও বিষয়টি নিয়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশ সুপার।

দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের নিচাখালিতে ‘ডানকানস’-এর একটি চা-বাগান ছিল। সংস্থাটি চা-বাগান ছেড়ে চলে যায় বছর দশেক আগে। তার পর থেকে চা-বাগানটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল। চা-বাগানে যে শ্রমিকেরা ছিলেন, তাঁরা সেই পরিত্যক্ত চা-বাগানের জমি নিজেদের দখলে রেখেছিলেন বলে দাবি। সেই জমি দখল করার জন্য শ্রমিকদেরই অন্য একটি অংশ শনিবার সকালে হামলা চালায় বলে অভিযোগ। দু’পক্ষের লোকেরা যখন দু’দিকে জমায়েত করেন সেই সময় জমি মাফিয়ারা পাখিমারা বন্দুক থেকে গুলি চালায় বলে অভিযোগ। আরও অভিযোগ, সেই সময় পুলিশও উপস্থিত ছিল ঘটনাস্থলে। এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য তথা স্থানীয় তৃণমূল নেতা লতিফুর রহমান বলেন, ‘‘ডানকানসের বাগান ছিল। সংস্থা যখন বাগান ছেড়ে চলে গেল তখন শ্রমিকেরাই বাগান চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এখন শ্রমিকদের মধ্যে বিভাজন হয়েছে। তার জেরেই গোলমাল। কয়েক জন আহত হয়েছেন বলে শুনেছি। তবে, গুলি চলার কোনও খবর আমি পাইনি। ইট, পাথর ছোড়াছুড়ি হয়েছে।’’

ইসলামপুর পুলিশ জেলার সুপার জবি থমাস আনন্দবাজার অনলাইনকে বলেন, ‘‘একটি চা-বাগানের জমি নিয়ে দুই গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছে। গোলমালের খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে পৌঁছে সবাইকে সরিয়ে দেয়। আমরা তদন্ত শুরু করছি। আইনানুগ পথে আমরা চলব। গুলি চলার কোনও প্রমাণ বা তথ্য আমরা ঘটনাস্থল থেকে পাইনি। কিন্তু কয়েক জন গ্রামবাসী বলছেন, ওখানে গুলি চলেছে। আমরা তদন্ত করে দেখব।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

police Hospital Firing
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE