Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৯ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

আদিবাসী বিক্ষোভে কড়া সুরক্ষা

শুক্রবার সকাল ন’টা। মালদহ জেলা প্রশাসনিক ভবন চত্বরে হাজির বিশাল পুলিশ বাহিনী। ঘটনাস্থলে রয়েছে জলকামানও। এ ছাড়া তিনটি ব্যারিকেড দিয়ে আটকানো

নিজস্ব সংবাদদাতা
মালদহ ৩০ জুন ২০১৮ ০৩:১৭
Save
Something isn't right! Please refresh.
আঁটোসাঁটো: হুল দিবসে ছুটির দাবি তুলে মিছিলে পুলিশ প্রহরা মালদহের জেলাশাসকের অফিসের সামনে। ছবি: তথাগত সেন শৰ্মা

আঁটোসাঁটো: হুল দিবসে ছুটির দাবি তুলে মিছিলে পুলিশ প্রহরা মালদহের জেলাশাসকের অফিসের সামনে। ছবি: তথাগত সেন শৰ্মা

Popup Close

শুক্রবার সকাল ন’টা। মালদহ জেলা প্রশাসনিক ভবন চত্বরে হাজির বিশাল পুলিশ বাহিনী। ঘটনাস্থলে রয়েছে জলকামানও। এ ছাড়া তিনটি ব্যারিকেড দিয়ে আটকানো হয়েছে প্রশাসনিক ভবন চত্বরের রাস্তা। এ দিন দুপুরে আদিবাসী সংগঠনগুলোর ঘেরাও আন্দোলনকে ঘিরে এমনই নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল মালদহ প্রশাসনিক ভবন চত্বর। তাঁদের দাবি, হুলদিবস সহ আদিবাসীদের পরবগুলির দিন সরকারি ছুটি দিতে হবে। মোট আট দফা দাবিতে এ দিন দুপুর দুটোয় ঘেরাও অবস্থান করে বিক্ষোভ দেখান সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। সন্ধে পর্যন্ত চলে তাঁদের ঘেরাও আন্দোলন।

এ দিন দুপুরে জেলার রথবাড়িতে জমায়েত হন সংগঠনের পাঁচ শতাধিক নেতা কর্মী। তির ধনুক, ধামসা মাদল নিয়ে শহর জুড়ে মিছিল করে হাজির হন জেলা প্রশাসনিক ভবন চত্বরে। প্রথম ব্যারিকেড পার করার পরই দ্বিতীয় ব্যারিকেডে তাঁদের আটকে দেয় পুলিশ। সেখানেই অবস্থান বিক্ষোভ চলে তাঁদের। তাঁরা দাবি তুলেছেন, আদিবাসী ভাষায় পঠন-পাঠন চালু করতে হবে।

এ দিনের ঘেরাও অবস্থানকে কেন্দ্র করে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছিল প্রশাসনিক ভবন চত্বরে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সহ ডিএসপি পদমর্যাদার একাধিক পুলিশ আধিকারিক মোতায়ন ছিলেন এদিন। এমনকি, প্রতিবেশী জেলা থেকেও প্রচুর পুলিশ নিয়ে আসা হয়েছিল। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দীপক সরকার বলেন, ‘‘সুষ্ঠু ভাবেই ডেপুটেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।’’

Advertisement

এ দিন প্রায় চার ঘণ্টা ধরে ঘেরাও বিক্ষোভ দেখানো হয়। আদিবাসী সংগঠনের নেতা মোহন হাঁসদা বলেন, ‘‘হুলদিবস আমাদের পরব। দীর্ঘ দিন ধরেই আমরা দাবি জানিয়ে আসছি হুল দিবসে সরকারি ছুটি ঘোষণা করতে হবে। অথচ রাজ্য সরকার কোন কর্ণপাত করছে না। তাই এদিন আমরা একসঙ্গে জমায়েত হয়ে আমাদের দাবি জানিয়েছি। এ ছাড়া আমাদের নানা ভাবে বঞ্চনা করা হচ্ছ।’’ তিনি জানান, সেই বিষয়ও প্রশাসনের কর্তাদের স্মারকলিপি দিয়ে জানানো হয়েছে।

আগামী দিনে আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামা হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা শাসক দেবতোষ মণ্ডল বলেন, তাঁদের দাবি দাওয়া ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement