Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৭ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

শুনলাম উপাচার্যকে বাড়িতে বেঁধে রাখে! সত্যি কি না জানি না, বিদ্যুৎকে খোঁচা কেষ্টর

নিজস্ব সংবাদদাতা
বোলপুর ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৮:৩২
বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে কটাক্ষ অনুব্রত মণ্ডলের।

বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে কটাক্ষ অনুব্রত মণ্ডলের।
— ফাইল চিত্র

ফের বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে ‘পাগল’ বলে কটাক্ষ করলেন তৃণমূলের বীরভূম জেলার সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। বিদ্যুৎকে বাড়িতে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয় বলেও খোঁচা দেন তিনি।

আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়িয়ে শনিবার বিশ্বভারতীর ক্যাম্পাসে মিছিল করে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ (টিএমসিপি)। মিছিল থেকে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিও ওঠে। এ প্রসঙ্গে অনুব্রতর প্রতিক্রিয়া, ‘‘বিশ্বভারতীর উপাচার্য ঘরে বসে থাকবেন আর বড়বড় লেকচার দেবেন, সেই দিন চলে গিয়েছে।’’ আদালতে মামলা দায়ের করা নিয়ে অনুব্রতর কাছে প্রতিক্রিয়া জানতে চান সাংবাদিকরা। সেই প্রশ্নের উত্তরে তৃণমূলের বীরভূম জেলার সভাপতি বলেন, ‘‘উনি (বিদ্যুৎ চক্রবর্তী) তো ওই রকমই পাগল। এখন না কি শুনলাম ওঁর বাড়ির লোকজন ওঁকে শিকল দেয়ে বেঁধে রেখেছেন। কতটা সত্যি, কতটা মিথ্যা জানি না।’’ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের আন্দোলন ‘ভয়ঙ্কর’ চেহারা নেবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন অনুব্রত।

ঘটনাচক্রে শনিবার বিশ্বভারতীর পড়ুয়াদের আন্দোলন নিয়ে কিছুটা নরম সুর শোনা গিয়েছে বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের গলায়। তিনি বলেন, ‘‘সবাই বিক্ষোভ দেখাতে পারেন। দিল্লিতেও এক বছর ধরে চলছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্রিয়া চালু রেখে বিক্ষোভ চলতে পারে। কিন্তু উপাচার্যকে খাবার না দিয়ে বা চিকিৎসা করার সুযোগ না দিয়ে যা করা হচ্ছিল তা ঠিক নয়।’’

Advertisement


আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ভবানীপুর আসনে উপনির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের এই ঘোষণা নিয়ে অনুব্রতর মত, ‘‘এ বার তৃণমূলের ২২০টি আসন হয়ে যাবে। আগে যা বলেছি, তাই হবে।’’ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণার পর থেকেই অনুব্রত দাবি করে আসছেন, তৃণমূল ২২০টি আসন পাবে। কমিশনের উপনির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা নিয়ে দিলীপ বলেন, ‘‘রাজ্যে পাঁচটি আসনে উপনির্বাচন হওয়ার কথা। কিন্তু তার মধ্যে একমাত্র ভবানীপুরেই কেন ভোটগ্রহণ হবে? নির্বাচন কমিশন কোনও ভাবে প্রভাবিত নয় তো!’’ তার প্রেক্ষিতে অনুব্রতের সংক্ষিপ্ত মন্তব্য, ‘‘দিলীপ ঘোষ একটা মস্ত বড় পাগল।’’ ভবানীপুরে অনুব্রত দলের হয়ে প্রচারে যাবেন কি না তাও জানতে চান সাংবাদিকরা। জবাবে কেষ্ট বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রার্থী হলে আরও কারও যাওয়ার প্রয়োজন নেই।’’

আরও পড়ুন

Advertisement