Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২২ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

Congress: ভোটে জোট নয়, বার্তা কংগ্রেসের

নিজস্ব সংবাদদাতা 
রঘুনাথপুর ০২ ডিসেম্বর ২০২১ ০৮:৪৩
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

পুরভোটে পুরুলিয়ার তিনটি পুরসভায় বামেদের সঙ্গে কংগ্রেসের জোট বা আসন সমঝোতা হচ্ছে না। এ কথা জানিয়েছেন জেলা কংগ্রেস সভাপতি নেপাল মাহাতো।

গত বিধানসভা ভোটে বাম-কংগ্রেস জোট হলেও, জয়পুর ও বাঘমুণ্ডি আসনে একে অপরের বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়েছিল তারা। বুধবার তবে নেপাল বলেন, ‘‘পুরুলিয়ায় পুরভোটে একাই লড়বে দল।” তাঁর অভিযোগ, ‘‘কংগ্রেস জোট নিয়ে ইতিবাচক। তবে বিধানসভা উপনির্বাচন, কলকাতা পুরভোটে দলের আসনগুলিতে প্রার্থী দিয়ে জোট-পরিবেশ নষ্ট করেছে বামফ্রন্ট।”

পুরুলিয়ায় গত পুরভোটেও বাম-কংগ্রেস জোট হয়নি। তা সত্ত্বেও ঝালদা পুরসভায় বারোটির মধ্যে সাতটি আসন দখল করে কংগ্রেস। পরে, অবশ্য কয়েক জন কাউন্সিলর শাসক দলে যোগ দেওয়ায় বোর্ড গঠন করে তৃণমূল। রঘুনাথপুরে একটি এবং পুরুলিয়া পুরসভায় ছ’টি আসনে জিতেছিল কংগ্রেস। জেলা কংগ্রেস নেতৃত্বের বড় অংশ মনে করছেন, জোট করে দলের কোনও লাভ হয়নি পুরুলিয়ায়।

Advertisement

পুরুলিয়া শহরের কংগ্রেস সভাপতি প্রদীপ চৌধুরীর বক্তব্য, ‘‘অতীত অভিজ্ঞতায় দেখা গিয়েছে, বামফ্রন্টের সঙ্গে জোট করে লড়ে কংগ্রেসেরই ক্ষতি বেশি হচ্ছে। তাই পুরসভায় এ বার একক ভাবেই লড়াই করতে চাই।” রঘুনাথপুরের শহর কংগ্রেস সভাপতি তারকনাথ পরামানিক মনে করেন, ‘‘গত পাঁচ বছর পুরসভায় বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করতে পারেনি সিপিএম। জোট হলে, তার দায় কংগ্রেসকেও বহন করতে হবে। যে দলের (সিপিএম) সংগঠন তলানিতে এসে ঠেকেছে, তাদের সঙ্গে জোট করে সে দায় বহন করতে রাজি নন দলের কর্মীরা।” ঝালদা শহরের কংগ্রেস সভাপতি অসীম সিংহের অভিমত, জোট হলেও তা থেকে যায় খাতায়-কলমে। তাঁর মতে, ‘‘কট্টর বামপন্থীরা কখনই কংগ্রেসকে ভোট দেবেন না। আবার কট্টর কংগ্রেস ভোটারেরা বাম প্রার্থীকে সমর্থন করতে পারেন না। জোট করে আখেরে কোনও লাভই হয় না। তাই একক ভাবে লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ঝালদায় এ বারও ভাল ফল করব।’’ তিন পুরসভা এলাকাতেই একক ভাবে লড়াইয়ের প্রস্তুতি দলীয় কর্মীরা নিতে শুরু করেছেন, দাবি কংগ্রেস নেতৃত্বের।

জোটের ‘পরিবেশ নষ্ট’ করার যে অভিযোগ বামেদের বিরুদ্ধে তুলেছেন নেপালবাবু, সে সম্পর্কে সিপিএম জেলা নেতৃত্ব সরাসরি কোনও মন্তব্য করতে চাননি। তবে তাঁরা মনে করিয়ে দিয়েছেন, ২০১৬ বিধানসভা ভোটে জেতা পুরুলিয়ার কংগ্রেস বিধায়ক সুদীপ মুখোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। এ বার বিজেপির টিকিটে ভোটে জিতে বিধায়ক হয়েছেন তিনি। গত বিধানসভায় পুরুলিয়ার কংগ্রেসের টিকিটে ভোটে লড়া পুরুলিয়া কেন্দ্রের প্রার্থী পার্থপ্রতিম বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। তাঁর সঙ্গী হয়েছেন পুরুলিয়া শহর কংগ্রেসের সভাপতি বিশ্বরূপ পট্টনায়েক। এই সব কারণে জেলায় কংগ্রেসের ‘অস্তিত্ব সঙ্কটে’ বলে মনে করছেন বাম নেতারা।

জেলা বামফ্রন্টের আহ্বায়ক তথা সিপিএমের জেলা সম্পাদক প্রদীপ রায় বলেন, ‘‘বামফ্রন্টের ঐক্য আরও মজবুত করে তৃণমূল ও বিজেপিকে আটকাতে মানুষের জোট গড়াই আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য।”

আরও পড়ুন

Advertisement