Advertisement
০৮ ডিসেম্বর ২০২২
Sougata Roy

IPAC: আইপ্যাক নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে সাংসদ সৌগত রায়কে নিষেধ করল তৃণমূল

তৃণমূল নেতৃত্বের একাংশ মনে করছেন, মমতা নিজে যখন এ বিষয়ে নিজের অবস্থান বুঝিয়ে দিয়েছেন, তখন সৌগতর মত প্রবীণ নেতার ভেবেচিন্তে কথা বলা উচিত ছিল।

সৌগত রায়।

সৌগত রায়।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১৩:০১
Share: Save:

আইপ্যাক নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে বারণ করা হল সৌগত রায়কে। বৃহস্পতিবারই তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতা দমদমের সাংসদকে ফোন করে এ বিষয়ে মন্তব্য করতে নিষেধ করে দিয়েছেন, এমনটাই খবর দলীয় সূত্রে। প্রবীণ সাংসদকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে আইপ্যাক প্রসঙ্গে তাঁর মন্তব্যকে দল ভাল চোখে দেখেনি। মঙ্গলবার সৌগত বলেছিলেন, ‘‘আইপ্যাকের সঙ্গে কী চুক্তি ছিল আমি জানি না। সেই চুক্তি ভেঙে গেছে। ক্ষতি না হলেও এতে অসুবিধা তো হবেই। পশ্চিমবঙ্গে এ বার তৃণমূলের জয়ের জন্য উল্লেখযোগ্য অবদান আইপ্যাকের।’’ দলের পক্ষ থেকে তাঁকে মুখ খুলতে নিষেধ করা নিয়ে অবশ্য কিছু বলতে রাজি নন সৌগত। প্রশ্ন শুনেই তিনি আনন্দবাজার অনলাইনকে বলেন, ‘‘কোনও মন্তব্য করব না।’’ পরে যোগ করেন, ‘‘গোটাটাই দলের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কেউ যদি আমাকে কিছু বলে থাকেন বা না বলে থাকেন সবটাই দলের ভিতরের বিষয়। এটা নিয়ে প্রকাশ্যে কিছু বলব না।”

Advertisement

আইপ্যাকের সঙ্গে তৃণমূলের সম্পর্কে জটিলতা তৈরি হয়েছে সম্প্রতি। চূড়ান্ত সম্পর্কচ্ছেদ হয়েছে কি না তা এখনও স্পষ্ট নয়। এ নিয়ে আনুষ্ঠানিক কোনও ঘোষণা কোনও তরফে করা হয়নি। কিন্তু আইপ্যাকের কিছু কিছু ভূমিকায় স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরক্ত বলে তৃণমূল সূত্রে খবর। সোমবার লখনউ রওনা হওয়ার আগে দমদম বিমানবন্দরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী। সেখানে তাঁকে প্রশ্ন করা হয় আইপ্যাকের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে! প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ‘‘আমাকে এই ধরনের প্রশ্ন করবেন না।’’ মমতা আরও বলেন, ‘‘এটা দলের কোনও অভ্যন্তরীণ বিষয় নয়। যদি আমার পার্টির কোনও অভ্যন্তরীণ বিষয় থাকে, সে বিষয়ে আপনারা আমাকে প্রশ্ন করতেই পারেন। এটা দলের কোনও বিষয় নয়।’’

ওই দিনই সাংবাদিক সম্মেলনে আইপ্যাক সংক্রান্ত প্রশ্নে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছিলেন, ‘‘যাঁরা আইপ্যাকের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেন, তাঁরাই এ ব্যাপারে বলতে পারবেন। আমি এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করব না।’’ রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী আরও যোগ করেন, ‘‘আমি মমতার সৈনিক। তাঁর নির্দেশেই চলি। তিনি কোনও নির্দেশ দিলে আমি তা মেনে চলি। তাই আর কারও কথা বলতে পারব না।’’

তৃণমূল নেতৃত্বের একাংশ মনে করছে, দলনেত্রী যখন এ বিষয়ে নিজের অবস্থান জানিয়ে দিয়েছেন, তখন সৌগতর মত প্রবীণ নেতার বোঝা উচিত ছিল আইপ্যাক নিয়ে দলের অবস্থান কী! আপাতত দলের মুখপাত্রদেরও এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে বারণ করা হয়েছে বলে তৃণমূল সূত্রে খবর।

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.