Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

Visva Bharati: বিশ্বভারতী নির্দেশ মানছে না, শিক্ষিকার বেতন মামলায় ফের ভর্ৎসনা হাই কোর্টের

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ১১ অগস্ট ২০২১ ১৬:২৪
কলকাতা হাই কোর্ট।

কলকাতা হাই কোর্ট।
ফাইল চিত্র।

কলকাতা হাই কোর্টের নির্দেশ মানছেন না বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ! বুধবার শুনানি পর্বে বিশ্বভারতীর আইনজীবীকে এ নিয়ে ফের ভর্ৎসনা করলেন বিচারপতি অমৃতা সিংহ। তাঁর মন্তব্য, ‘‘এটা কী হচ্ছে?’’

মঙ্গলবার হাই কোর্ট শিক্ষিকা শ্রুতি বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেতন সংক্রান্ত সমস্যার মামলার পরিপ্রেক্ষিতে নির্দেশ দেয়, বিশ্বভারতীর কর্ম সমিতির কাছেই এই সংক্রান্ত সমস্যার শুনানি হবে। সে ক্ষেত্রে কর্ম সমিতির ১৯ জন সদস্যের মধ্যে ন্যূনতম ৬ জন সদস্যকে উপস্থিত থাকতে হবে।

আদালতের এই নির্দেশ সত্ত্বেও মঙ্গলবার বিশ্বভারতীর তরফে ফের নোটিস দিয়ে জানানো হয়, এক সদস্যের কমিটির কাছে বুধবার বিকেল ৪টের সময় ভার্চুয়াল মাধ্যমে শুনানিতে হাজির হতে হবে শ্রুতিকে। বিশ্বভারতীর এই নোটিসকে চ্যালেঞ্জ করে শ্রুতি ফের হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন।

বুধবার ফের ওই মামলার শুনানিতে বিচারপতি সিংহ বিশ্বভারতীর আইনজীবীকে প্রশ্ন করেন, ‘‘আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও সেই নির্দেশ অমান্য করে বিশ্বভারতী কী করে নোটিস জারি করে?’’ বিচারপতি আরও বলেন, ‘‘যেখানে কর্মসমিতির ন্যূনতম সদস্যের কথা নির্দেশিকায় উল্লেখ আছে, সেখানে একজন সদস্যের মাধ্যমে কী করে ভার্চুয়াল শুনানির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়?’’

Advertisement

বিচারপতির প্রশ্নের জবাব দিতে পারেননি বিশ্বভারতীর আইনজীবী। তিনি আদালতের কাছে সময় চান। তার পরেই বিচারপতি সিংহ নির্দেশ দেন, মঙ্গলবার ১০ অগস্ট বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ যে নোটিশ জারি করেছে তার উপর ২০ অগস্ট পর্যন্ত স্থগিতাদেশ থাকবে। এই মামলার পরবর্তী শুনানি ১৬ অগস্ট।

প্রসঙ্গত, বেতন সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন শ্রুতি। তাঁর অভিযোগ ছিল, তিনি বিশ্বভারতীর শিক্ষিকা হিসাবে যোগ দেওয়ার কিছু দিন পর উপাচার্য পদে আসেন বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। তিনি শ্রুতিকে জানান, প্রাপ্য বেতনের থেকে অনেক বেশি তাঁকে দেওয়া হয়েছে। ১৪ লক্ষ টাকা ফেরত দিতে বলেন। সাধারণত এই ধরনের কোনও সমস্যা আট জন শিক্ষককে নিয়ে তৈরি একটি বিশেষ কর্মসমিতি সমাধান করে। সেখানেই শুনানির পর নির্দিষ্ট সিদ্ধান্তে পৌঁছানো হয়। কিন্তু এ ক্ষেত্রে বিশ্বভারতীর উপাচার্য একজন স্পেশাল অফিসার নিয়োগ করেন।

মঙ্গলবার উপাচার্যের সেই নির্দেশ খারিজ করে বিচারপতি সিংহ নির্দেশ দেন, বেতন সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট কর্মসমিতিতেই নিতে হবে। পাশাপাশি নিয়ম বহির্ভুত কাজের জন্য ভর্ৎসনা করেন বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষকে।

আরও পড়ুন

Advertisement