Advertisement
২৩ জুলাই ২০২৪
WB Health Department

জেলা আদালতের চিকিৎসা ব্যবস্থার খতিয়ান চায় স্বাস্থ্য দফতর

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের খবর, কলকাতা হাই কোর্ট এবং কিছু জেলা আদালতে চিকিৎসার বন্দোবস্ত রয়েছে। কিন্তু সর্বত্র তা নেই। এক আধিকারিকের কথায়, ‘‘হাই কোর্ট বলার পরে আমরাও সামগ্রিক পরিস্থিতির তথ্য নিয়ে রাখছি।”

An image of WB Health Department

স্বাস্থ্য ভবন। —ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৬ ডিসেম্বর ২০২৩ ০৬:২৯
Share: Save:

জেলা এবং মহকুমা আদালতগুলিতে আপৎকালীন চিকিৎসার কী ব্যবস্থা রয়েছে, এ বার সেই বিষয়ে তথ্য জোগাড় করছে স্বাস্থ্য দফতর। সেই জন্য সমস্ত জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ও মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালগুলির কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য-অধিকর্তা।

সূত্রের খবর, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী, কলকাতা হাই কোর্ট রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরকে
বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করে। কারণ, বেশ কয়েকটি জেলা আদালতের বিচারক অবিলম্বে আদালত চত্বরে আপৎকালীন চিকিৎসা ব্যবস্থা রাখার আবেদন জানান। কিন্তু কোথায়, কী ধরনের পরিকাঠামো রয়েছে বা আদৌ আছে কি না, সে সম্পর্কে সামগ্রিক কোনও তথ্য নেই। হাই কোর্টের কাছ থেকে বিষয়টি জানার পরেই স্বাস্থ্য দফতরের তরফে জেলার
বিভিন্ন আদালতে কী ধরনের চিকিৎসার বন্দোবস্ত আছে, সেই আদালতের জন্য নির্দিষ্ট কোনও অ্যাম্বুল্যান্স স্থায়ী ভাবে রয়েছে কি না, তা জানতে চেয়ে নির্দেশিকা জারি করা হয়। তাতে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট আদালতের চিকিৎসা ব্যবস্থা ও অ্যাম্বুল্যান্স সম্পর্কে যথাযথ ভাবে জানাতে হবে। যদি কোনও চিকিৎসা ব্যবস্থা থাকে, তা হলে সেটির ব্যবস্থাপনা কেমন, তা-ও লিখিত ভাবে জানাতে বলা হয়েছে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রের খবর, কলকাতা হাই কোর্ট এবং কিছু জেলা আদালতে চিকিৎসার বন্দোবস্ত রয়েছে। কিন্তু সর্বত্র তা নেই। এক আধিকারিকের কথায়, ‘‘হাই কোর্ট বলার পরে আমরাও সামগ্রিক পরিস্থিতির তথ্য নিয়ে রাখছি। আদালত পরে কিছু বললে বা জানতে চাইলে সেই মতো পদক্ষেপ করা হবে। তবে, সর্বত্র পরিষেবা চালু করতে গেলে স্বাস্থ্য দফতরের তরফে সরকারকে জানাতে হবে।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE