×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

বিজেপিতে মহিলাদের ‘সম্মান’ নেই, সরব মমতা

নিজস্ব সংবাদদাতা
সাহাগঞ্জ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৬:৪১
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
ফাইল চিত্র।

বিজেপিতে মহিলারা নিরাপদ নন বলে এ বার অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জনতার উদ্দেশে তাঁর আবেদন, ওই দলে কেউ যেন ঘরের মা-বোনেদের না পাঠান। বিজেপি অবশ্য তৃণমূল নেত্রীর এমন অভিযোগ নস্যাৎ করে দিয়েছে।

সম্প্রতি কোকেন-কাণ্ডে গ্রেফতার হয়েছেন বিজেপির যুব নেত্রী পামেলা গোস্বামী। তাঁর অভিযোগের সূত্রে পুলিশ গ্রেফতার করেছে বিজেপি নেতা রাকেশ সিংহকে। জেরায় বিজেপির আরও কিছু নেতার নাম পামেলা করেছেন পুলিশ সূত্রের দাবি। তার আগে সামাজিক মাধ্যমে দুই অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত ও সায়নী ঘোষকে বিজেপির আক্রমণকে ঘিরেও জলঘোলা হয়েছে। সায়নী বুধবারই সাহাগঞ্জে তৃণমূলের সভায় মুখ্যমন্ত্রীর হাত থেকে পতাকা নিয়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। সায়নীর প্রসঙ্গেই মহিলাদের প্রতি বিজেপির অসম্মানের কথা বলেছেন মমতা। তবে তাঁর অভিযোগ ঘরে-বাইরে বিজেপির সামগ্রিক কর্মকাণ্ড ঘিরেই, এমনই মনে করছে রাজনৈতিক শিবির।

তৃণমূলে যোগ দিয়ে সায়নী এ দিন বলেছেন, ‘‘বাংলার মা-বোনেদের সম্মান রক্ষা করতে হবে আমাদের। বাংলায় শান্তি ও সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখতে হবে। বাংলার মাটি ১০ কোটি মানুষের হৃদ্স্পন্দন। শুধু ভোটের আগে তা কারও পাখির চোখ উঠতে পারে না।’’ পরে নিজের বক্তৃতায় মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘সায়নী সামান্য দু’টো টুইট করেছে। তার জন্য প্রতি দিন ওকে যা নয়, তা ভাষায় আক্রমণ করা হয়েছে। দেবলীনাকেও কী অপমানটাই না করেছে ওরা। কয়েক জন অসভ্য লোক রয়েছে বিজেপিতে।’’ এই সঙ্গেই মমতার আরও মন্তব্য, ‘‘তার পরেও বিজেপি করবেন? মা-বোনেদের বিজেপিতে পাঠাবেন? ওদের দলে মেয়েদের কোনও সম্মান নেই। যারা গিয়েছে, তাদের সঙ্গে প্রতিদিন কী ভাবে করছে, তা বললে জল অনেক দূর গড়াবে। আমি বলছি না।’’ তাঁদের দলে মেয়েদের সম্মান অনেক বেশি বলে দাবি করে মমতার আবেদন, ‘‘ওই দলে মেয়ে পাঠাবেন না!’’

Advertisement

তৃণমূল নেত্রীর এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে হুগলির সাংসদ তথা রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক লকেট চট্টোপাধ্যায়ের পাল্টা বক্তব্য, ‘‘বিজেপিতে মহিলারা অসুরক্ষিত, এমন কখনও শুনিনি। আমি নিজে এক জন মহিলা। বিজেপি আমাকে কাজের জায়গা দিয়েছে, লড়াই করে আমি সাংসদ হয়েছি। দলে অন্য মহিলারাও সম্মান পান।’’ লকেটের দাবি, কেন্দ্রীয় সরকারও মহিলাদের সম্মান করে বলেই তাঁদের কষ্ট লাঘব করতে উজ্জ্বলা গ্যাস প্রকল্প করেছে, জনধন যোজনায় মহিলাদের নামে টাকা পাঠিয়েছে। বিজেপি নেত্রীর কটাক্ষ, ‘‘আর উনি রাজ্য জুড়ে কামদুনি, মধ্যমগ্রাম, মালদহ-সহ নানা জায়গায় ধর্ষণ ও নারীনিগ্রহের ঘটনায় শাস্তি পর্যন্ত দিতে পারেননি।’’

সাহাগঞ্জের সভায় এ দিন সায়নীর পাশাপাশিই টলিউড থেকে রাজ চক্রবর্তী, জুন মাল্য, সুদেষ্ণা রায়, মানালি দে, কাঞ্চন মল্লিক, শিশু অধিকার রক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন অনন্যা চক্রবর্তী, ক্রিকেটার মনোজ তিওয়ারি ও ফুটবলার সৌমিক দে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। সিপিএমের প্রাক্তন বিধায়ক লগনদেও সিংহও আছেন এই তালিকায়। মমতার আগে তৃণমূলের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, অপরূপা পোদ্দারেরা দাবি করেছেন, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, মধ্যপ্রদেশের মতো রাজ্যে মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধের হার বাংলার চেয়ে বেশি।

Advertisement