×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১০ মে ২০২১ ই-পেপার

সরঞ্জাম-সহ তিমি উদ্ধার, রুশ গুপ্তচর কি না, তা নিয়ে সংশয়

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ৩০ এপ্রিল ২০১৯ ১৪:৪২
নরওয়ে মত্স্যজীবীদের হাতে ধরা পড়া তিমি। ছবি ফেসবুক থেকে নেওয়া।

নরওয়ে মত্স্যজীবীদের হাতে ধরা পড়া তিমি। ছবি ফেসবুক থেকে নেওয়া।

কিছু সরঞ্জাম বাঁধা অবস্থায় নরওয়ের মৎস্যজীবীদের হাতে একটি বেলুগা তিমি ধরা পড়ল শুক্রবার। দাবি করা হচ্ছে এই সরঞ্জামগুলি রাশিয়ার তৈরি। সে দেশের নৌবাহিনী এদের গুপ্তচরবৃত্তির জন্য প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বলে খবর। তিমিটি ধরা পড়ার পর নরওয়ে-সহ স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলিতে এ নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে।

শুক্রবার রাশিয়ার মুরমানস্ক থেকে ৪১৫ কিলোমিটার দূরে ইনগোয়া দ্বীপের কাছে নরওয়ের একটি বোটের কাছে চলে আসে তিমিটি। সেটি রাশিয়ার নৌবাহিনীর ঘেরাটোপ থেকে কোনও ভাবে পালিয়ে এসেছে বলে মনে করা হচ্ছে। তিমিটিকে দেখতে পেয়ে দুই মৎস্যজীবী বরফ জলে ঝাঁপ দেন। তার শরীর থেকে বেল্ট ও বেল্টে বাঁধা সব সরঞ্জাম খুলে নেন তাঁরা। এই সরঞ্জামে সেন্ট পিটার্সবার্গের নাম লেখা ছিল। এর মধ্যে একটি অ্যাকশন ক্যামেরাও ছিল বলে এক সংবাদ সংস্থা দাবি করেছে।

নরওয়ের ডিরেক্টরেট অফ ফিশারিজের তরফে ফেসবুকে তিমি ও তার সরঞ্জামের ছবি পোস্ট করা হয়েছে।

Advertisement


নরওয়ে ইউনিভার্সিটির এক জীববিদ্যার অধ্যাপক জানিয়েছেন, রাশিয়া তিমিকে পোষ মানায়। তাদেরই কয়েকটিকেই ছাড়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পডু়ন : মিনিটে ৬০০ রাউন্ড, রুশ প্রযুক্তির কালাশনিকভ এ বার তৈরি হবে ভারতেই

আরও পডু়ন : বয়স ৬৬, তবু পেশাদার খেলোয়াড়দের সঙ্গে জুডো খেলে চমকে দিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট

রাশিয়ার এক আধিকারিক কর্নেল ভিক্টর বারানেটস, তিমিকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার বিষয়টি খারিজ করে দিয়েছেন। তাঁর দাবি, তাঁরা এই প্রাণিগুলিকে গুপ্তচরবৃত্তির জন্য ব্যবহার করেননি। যদি করতেন তাহলে তাদের গায়ে কি কোনও ফোন নম্বর লিখে দিতেন, সেই সঙ্গে লিখে দিতেন, দয়া করে এই নম্বরে ফোন করুন। তবে আমাদের সামরিক ডলফিন রয়েছে। সেগুলিকে যুদ্ধের জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। আর এই বিষয়টিকে তাঁরা লুকানোর চেষ্টা করেন না।

তবে সাজসরঞ্জাম-সহ তিমি ধরা পড়ার বিষয়টি নিয়ে নরওয়ে তদন্ত শুরু করেছে।

Advertisement