Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

হিংসার স্মৃতি ভোলাবে ম্যাঞ্চেস্টারের গাঁধীমূর্তি 

সোমবার ব্রিটেনের ম্যাঞ্চেস্টার শহরে মোহনদাস কর্মচন্দ গাঁধীর একটি মূর্তির উন্মোচন করা হয়। শিল্পী রাম সুতারের তৈরি ৯ ফুট উঁচু ব্রোঞ্জের মূর্তি

সংবাদ সংস্থা
ম্যাঞ্চেস্টার ২৭ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৫৬
Save
Something isn't right! Please refresh.
শান্তির সন্ধানে: ম্যাঞ্চেস্টারে গাঁধী মূর্তি। ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া

শান্তির সন্ধানে: ম্যাঞ্চেস্টারে গাঁধী মূর্তি। ছবি: সোশ্যাল মিডিয়া

Popup Close

হিংসায় বিদ্ধ শহরের কেন্দ্রে বসানো হল অহিংসার প্রাণপুরুষের মূর্তি।

সোমবার ব্রিটেনের ম্যাঞ্চেস্টার শহরে মোহনদাস কর্মচন্দ গাঁধীর একটি মূর্তির উন্মোচন করা হয়। শিল্পী রাম সুতারের তৈরি ৯ ফুট উঁচু ব্রোঞ্জের মূর্তিটি বসানো হয়েছে শহরের প্রাণকেন্দ্র ‘মিডিয়েভাল কোয়ার্টারে’। মূর্তি উন্মোচন করে গ্রেটার ম্যাঞ্চেস্টারের মেয়র অ্যান্ডি বার্নঅ্যাম বলেন, ‘‘অশান্ত এক সময়ে বাস করছি আমরা। গাঁধীর দেখানো শান্তির পথ অনুসরণের প্রয়োজনীয়তা আমাদের সব সময়ে মনে রাখতে হবে।’’ মূর্তি উন্মোচন অনুষ্ঠানে ম্যাঞ্চেস্টার সিটি কাউন্সিলের প্রধান রিচার্ড লিস। তাঁর কথায়, ‘‘২০১৭-র জঙ্গি হামলার পরে ম্যাঞ্চেস্টারের মানুষ অহিংসা ও অনুকম্পা দিয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলা করেছিলেন। গাঁধীর এই মূর্তি তাঁদের অনুপ্রেরণা দেবে।

২০১৭ সালের ২২ মে শহরের সব থেকে বড় স্টেডিয়াম ম্যাঞ্চেস্টার অ্যারেনায় আত্মঘাতী হামলায় নিহত হয়েছিলেন ২৩ জন, জখম ১৩৯। পপ তারকা আরিয়ানা গ্রান্ডের একটি কনসার্ট শেষ হওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল জঙ্গি। আহতদের মধ্যে বেশির ভাগই কনসার্ট শুনতে আসা কিশোর-কিশোরী।

Advertisement

সোমবার ‘মিডিয়েভাল কোয়ার্টারে’র অনুষ্ঠানে মেয়র ও সিটি কাউন্সিলের প্রধান ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ম্যাঞ্চেস্টারের বিশপ ডেভিড ওয়াকার এবং এসআরএমডি নামে যে বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে এই মূর্তি বসানো হয়েছে, সেই সংস্থার প্রধান রাকেশ জাভেরি। ছিলেন ভারতীয় হাই কমিশনের প্রতিনিধিরাও।

গত বছর থেকে ব্রিটিশ সরকারের তত্ত্বাবধানে শুরু হয়েছে ‘ম্যাঞ্চেস্টার ইন্ডিয়া পার্টনারশিপ’। ব্রিটেনের এই শহরের সঙ্গে ভারতের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও মজবুত করার জন্যই এই উদ্যোগ। এই ‘পার্টনারশিপ’-এর চেয়ারপার্সন অ্যান্ড্রু কোয়ানের কথায়, ‘‘ম্যাঞ্চেস্টার ও ভারতের মধ্যে সেতুর কাজ করবে এই গাঁধীমূর্তি।’’

ভারতের স্বাধীনতার জন্য ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে নিরলস লড়াই চালিয়ে যাওয়া গাঁধীর ব্রিটেনের বিভিন্ন শহরে ‘উপস্থিতি’ চোখে পড়ার মতো। পরিসংখ্যান বলে, অ-ইউরোপীয়দের মধ্যে ব্রিটেনের বিভিন্ন শহরে সব থেকে বেশি রয়েছে গাঁধীর-ই মূর্তি। যার মধ্যে সাম্প্রতিকতম সংযোজন ম্যাঞ্চেস্টার। লন্ডনের পার্লামেন্ট স্কোয়ারে গাঁধীর মূর্তির অনতিদূরেই রয়েছে ব্রিটেনের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিলের মূর্তি। সেই চার্চিল, যিনি গাঁধীকে উল্লেখ করতেন ‘অর্ধনগ্ন ফকির’ বলে।



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement