Advertisement
০১ ডিসেম্বর ২০২২
Nobel

মানুষের বিবর্তন আবিষ্কার, মেডিসিনে নোবেল পেলেন সুইডেনের এসভান্তে পাবো

অ্যাসেম্বলি। বিলুপ্ত হোমিনিনসের জিনোম এবং মানবজাতির বিবর্তন নিয়ে গবেষণা করে এই স্বীকৃতি পাবোর। পাবেন ১ কোটি সুইডিশ ক্রাউনস। ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাত কোটি ৩৬ লক্ষ ৫৩ হাজার ৭০৫ টাকা।

এসভান্তে পাবোর জন্ম সুইডেনে।

এসভান্তে পাবোর জন্ম সুইডেনে। —ফাইল ছবি।

সংবাদ সংস্থা
স্টকহলম শেষ আপডেট: ০৩ অক্টোবর ২০২২ ১৬:৫৩
Share: Save:

মেডিসিন বা ফিজিওলজি বিভাগে ২০২২ সালে নোবেল পেলেন এসভান্তে পাবো। সোমবার এই পুরস্কারের কথা ঘোষণা করল সুইডেনের কারোলিনস্কা ইনস্টিটিউটের নোবেল অ্যাসেম্বলি। বিলুপ্ত হোমিনিনসের জিনোম এবং মানবজাতির বিবর্তন নিয়ে গবেষণা করে এই স্বীকৃতি পাবোর। পুরস্কার মূল্য হিসাবে পাবেন ১ কোটি সুইডিশ ক্রাউনস। ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় সাত কোটি ৩৬ লক্ষ ৫৩ হাজার ৭০৫ টাকা।

Advertisement

পাবোর জন্ম সুইডেনে। আজকের মানব প্রজাতির বিলুপ্ত পূর্বসূরি ছিল নিয়ানডারথাল। সেই নিয়ানডারথালের জিনোম পরীক্ষা করেছেন পাবো। বর্তমান মানব প্রজাতির আর এক পূর্বসূরি হোমিনিন নিয়েও গবেষণা করেছেন এই সুইডিশ বিজ্ঞানী। গবেষণায় তিনি জানতে পেরেছেন, ওই বিলুপ্ত প্রজাতি থেকে জিন ট্রান্সফার হয়েছে বর্তমান মানব প্রজাতির শরীরে।

কী ভাবে হয়েছে, তার প্রভাব কী, এ সব আজকের পরিস্থিতিতেও যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করেন পাবো। সংক্রমণের ক্ষেত্রে আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ যন্ত্র কী ভাবে প্রতিক্রিয়া জানায়, তা-ও এই গবেষণার সময় আরও ভাল ভাবে বুঝতে পেরেছেন বিজ্ঞানী।

এ বছর মেডিসিনে নোবেল দেওয়ার ক্ষেত্রে এমআরএনএ প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণার বিষয়টিও বিচার করেছিল কমিটি। কোভিড টিকার তৈরির ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তি ব্যবহার হয়েছে। এর ফলে প্রাণে বেঁচেছেন কোটি কোটি মানুষ। যদিও শেষ পর্যন্ত নোবেল পুরস্কার পেলেন পাবো। ১০ ডিসেম্বর তাঁর হাতে তুলে দেওয়া হবে পুরস্কার।

Advertisement

গত বছর মেডিসিন বিভাগে নোবেল পেয়েছিলেন ডেভিড জুলিয়াস এবং আর্ডেম পাটাপৌটিয়ান। মানব শরীর কীভাবে উষ্ণতা এবং স্পর্শ উপলব্ধি করে, সেই প্রক্রিয়া আবিষ্কার করে নোবেল পেয়েছিলেন তাঁরা।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.