×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২২ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

করোনা আশঙ্কা তুড়ি মেরে প্রচারসভা ট্রাম্পের

সংবাদ সংস্থা
ওয়াশিংটন১৫ জুন ২০২০ ০৪:২৪
ফাইল চিত্র

ফাইল চিত্র

করোনার জন্য কিছুটা পিছিয়ে গিয়েছে প্রচারের তোড়জোড়। কালবিলম্ব না করে তাই আগামী শনিবারই সমর্থকদের নিয়ে সাড়ম্বরে প্রচারসভার প্রস্তুতি নিচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ দিকে, করোনা সংক্রমণে এখনও বিশ্বে এক নম্বর জায়গাটি আমেরিকার দখলে। হলে কী হবে, ওকলাহামার টুলসায় ট্রাম্পের প্রচারের জন্য তৈরি ১৯ হাজার আসনের সভাকক্ষ।

বিশেষজ্ঞেরা প্রশ্ন তুলছেন, বদ্ধ জায়গায় কয়েক হাজার লোক নিয়ে এই সভা করলে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা হু হু করে বাড়বে।  বহু সংখ্যক মানুষের জমায়েত হলে পরস্পরের মধ্যে ৬ ফুট দূরত্ব রাখা প্রায় অসম্ভব। তার উপরে অনেকেই আসবেন দূর-দূরান্ত থেকে। অতীতে দেখা গিয়েছে, ট্রাম্পের সভা মানেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা মানুষের উপচে পড়া ভিড়। সভাকক্ষে ঢোকার আগে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বাইরে লাইন করে দাঁড়ান সমর্থকেরা। বিমানবন্দরের কায়দায় নিরাপত্তা পরীক্ষার পরে সভায় ঢুকতে পারেন তাঁরা। দর্শকেরা হয় পাশাপাশি বসেন, নয়তো দাঁড়িয়ে থাকেন। ট্রাম্পের সমর্থনে হাততালি, চিৎকার, উল্লাসে ভরে ওঠে সভা। কখনও কখনও আবার ট্রাম্প-বিরোধীরা ঢুকে পড়ে হাতাহাতি বাধায় সমর্থকদের সঙ্গে। হার্ভার্ড’স গ্লোবাল হেল্থ ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর আশিস ঝা বলেছেন, ‘‘সভায় অংশগ্রহণকারীরা মারাত্মক ভুল করবেন। যাঁরা অন্য প্রদেশ বা শহর থেকে আসবেন মনে রাখবেন, তাঁরা কিন্তু ভাইরাস নিয়ে ফিরবেন। জো বাইডেন সভা করলেও আমি একই কথা বলব।’’

বিপদ যে হতে পারে তা বিলক্ষণ জানে ট্রাম্পের প্রচার দল। ফলে যাঁরা যোগ দিতে চান তাঁদের আগেভাগেই জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে, সভায় এসে কোভিড সংক্রমণ হলে তার জন্য ট্রাম্পকে দুষলে চলবে না। তাঁর প্রচার ওয়েবসাইটে সাফ লেখা রয়েছে, ‘‘নাম নথিভুক্ত করলে নিশ্চই এটা জেনেই করছেন যে জনসভায় এলে কোভিড সংক্রমণের ঝুঁকি থাকবে।’’   

Advertisement

এ দিকে, আশঙ্কা বাড়িয়ে চিনে নতুন করে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ল ৫৭ জনের দেহে। এপ্রিল থেকে দৈনিক হিসেবে যা এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ। জানা গিয়েছে, দক্ষিণ বেজিংয়ের একটি  মাংস ও আনাজের বাজার থেকেই নতুন করে সংক্রমণ ছড়িয়েছে। গত কালই ওই বাজার ও তার আশপাশের ১১টি আবাসিক অঞ্চল সিল করা হয়েছে। পাকিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রক আজ জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সে দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৮০ জনের। সংক্রমিত সাত হাজারের কাছাকাছি। দৈনিক রেকর্ড অনুযায়ী এখনও পর্যন্ত যা সর্বাধিক। ইরানেও প্রথম করোনায় দৈনিক মৃত্যু একশো ছাড়াল। 

আরও পড়ুন: লকডাউনে দূষণহীন স্বচ্ছ হ্রদের নীচে উঁকি দিচ্ছে ১৬০০ বছরের প্রাচীন ইতিহাস

Advertisement