আমেরিকার সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি আর প্রস্তাবিত মুক্ত আঞ্চলিক বাণিজ্য (আরসিইপি)। সূত্রের খবর, মূলত এই দুই বিষয় নিয়েই ষষ্ঠীর সন্ধ্যায় বৈঠক হল নর্থ ব্লকে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নেতৃত্বে বৈঠক করলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন, বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল। ছিলেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী হরদীপ সিংহ পুরীও।

আমেরিকার থেকে সুবিধা নিলেও, ভারত মার্কিন পণ্যের জন্য বাজার সে ভাবে খোলে না বলে প্রায়ই অভিযোগ তোলে ওয়াশিংটন। এ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বিঁধেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবারও নয়াদিল্লিতে ভারতকে অন্যতম রক্ষণশীল দেশের তকমা দিয়েছেন মার্কিন বাণিজ্য সচিব উইলবার রস। দাবি করেছেন, বাণিজ্য চুক্তির পথে বাধা দূর করতে আলোচনার চেষ্টা করছেন তাঁরা। তার পরেই এ দিন বাণিজ্য সংক্রান্ত মন্ত্রিগোষ্ঠীর প্রধান অমিত শাহের এই বৈঠক ডাকাকে তাই তাৎপর্যপূর্ণ মনে করছেন অনেকে।

একই ভাবে গুরুত্ব পাচ্ছে আরসিইপি নিয়ে কথার সম্ভাবনাও। কারণ, সম্প্রতি শোনা গিয়েছিল এই মুক্ত বাণিজ্যের কিছু সম্ভাবনা নিয়ে কেন্দ্রের উপরে বেজায় চটেছে আরএসএসের স্বদেশি জাগরণ মঞ্চ। বিশেষত নিউজিল্যান্ডের মতো দেশের সামনে ভারতের দুগ্ধজাত পণ্যের বাজার খোলার সম্ভাবনার ঘোর বিরোধী তারা। কারণ, তাতে এ দেশের গোয়ালা ও সংস্থার ব্যবসা মার খেতে পারে বলে তাদের আশঙ্কা। এ বিষয়ে মঞ্চের আপত্তি এতটাই তীব্র যে, এই দরজা খোলার জন্য চাহিদার তুলনায় দেশীয় জোগানকে কম দেখাতে নীতি আয়োগের মাধ্যমে পরিসংখ্যানে কারচুপি করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ তুলেছে তারা। এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রকের অবস্থান নিয়ে আপত্তি তুলে চিঠি দিয়েছে পীযূষকে। সেই কারণেও বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে এ দিনের বৈঠক।