চিনের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি চূড়ান্ত করতে আমেরিকা যে এখনই প্রস্তুত নয়, শুক্রবার তা স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুধু তা-ই নয়, শুল্ক-জট ছাড়াতে সেপ্টেম্বরে দু’পক্ষের মধ্যে যে বৈঠক হওয়ার কথা, তা বাতিল করা হতে পারে বলেও ইঙ্গিত দেন তিনি। শনিবার আবারও চুক্তি নিয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করে দিলেন ট্রাম্প। জানালেন, শুল্ক-যুদ্ধের বিরূপ ফল ইতিমধ্যেই টের পাচ্ছে চিন। যা গত এক দশকে হয়নি। সে কারণেই আমেরিকার সঙ্গে চুক্তি করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে চিন। যদিও চুক্তির ব্যাপারে তিনি নিজে মরিয়া নন বলেও দাবি করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

একই সঙ্গে ট্রাম্প এ-ও পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে, চিনের অন্যতম বৃহৎ টেলিকম সংস্থা হুয়েইয়ের সঙ্গে আমেরিকা আর কোনও ব্যবসায়িক সম্পর্কে যাবে না।

আমেরিকা ইতিমধ্যেই ২৫,০০০ কোটি ডলারের চিনা পণ্যের উপর ২৫% আমদানি শুল্ক চাপিয়েছে। আরও ৩০,০০০ কোটি ডলারের পণ্যের উপরে অতিরিক্ত ১০% শুল্ক বসাতে চাইছে ট্রাম্প প্রশাসন। আমেরিকার পাল্টা বহু মার্কিন পণ্যে চিনও শুল্ক বসিয়ে জবাব দিতে চেয়েছে। কিন্তু চিনা পণ্যে মার্কিন শুল্ক ক্রমশ বাড়তে থাকলে চিনের আর্থিক বৃদ্ধির হার যে ভাল রকম ধাক্কা খাবে সে বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে আন্তর্জাতিক অর্থ ভাণ্ডার (আইএমএফ)। উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই শুল্ক-যুদ্ধের ফলে চিনা অর্থনীতির গতি কমেছে। আইএমএফের বক্তব্য, অতিরিক্ত শুল্ক না চাপলেও এ বছর তাদের বৃদ্ধির হার কমে হবে ৬.২%।