বিশ্ব অর্থনীতি ঝিমিয়ে পড়ার খেসারত যে ভারতের মতো উন্নয়নশীল দেশকেই সব থেকে বেশি গুনতে হবে, সেই হুঁশিয়ারি আগেই দিয়েছে আন্তর্জাতিক অর্থ ভাণ্ডার (আইএমএফ)। মঙ্গলবার সেই আশঙ্কার জায়গা থেকেই চলতি বছরে বৃদ্ধির পূর্বাভাস এক ধাক্কায় প্রায় ১.২ শতাংশ বিন্দু কমিয়ে ৬.১ শতাংশে নামিয়ে আনল তারা। 

এর আগে চাহিদাকে চাঙ্গা করতে নাগাড়ে সুদ কমানোর পরেও বৃদ্ধির পূর্বাভাস ছেঁটেছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। পূর্বাভাস দেড় শতাংশ বিন্দু কমিয়ে ৬ শতাংশে নামিয়েছে বিশ্ব ব্যাঙ্কও। সংশ্লিষ্ট মহলের দাবি, কেন্দ্র আর্থিক সঙ্কটকে যতই হাল্কা করে দেখাক, বিভিন্ন সমীক্ষায় অর্থনীতির কঙ্কালসার চেহারাটাই স্পষ্ট হচ্ছে ক্রমশ। সরকার অর্থনীতিকে ধ্বংস করছে বলে এ দিনই তোপ দেগেছে কংগ্রেস। 

এ দিন আইএমএফ জানিয়েছে, এপ্রিলে এ বছর ভারতের বৃদ্ধি ৭.৩% হবে বলে ধরেছিল তারা। কিন্তু দেশীয় চাহিদা আশঙ্কার তুলনায় বেশি দুর্বল হওয়ায় তা কমানো হয়েছে। আগামী বছরের জন্য ৭%। তাদের দাবি, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সুদ কমানো হোক বা কেন্দ্রের কর্পোরেট কর ছাঁটাইয়ের মতো চাহিদা বাড়ানোর বিভিন্ন পদক্ষেপ, বৃদ্ধিতে তার ছাপ পড়তে দেরি হবে। 

ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতা, চিন-মার্কিন শুল্ক যুদ্ধ, বাণিজ্যে রক্ষণশীল মনোভাবের দরুন বিশ্ব অর্থনীতির গতিও মন্থর হচ্ছে বলে হুঁশিয়ারি দেন আইএমএফের মুখ্য অর্থনীতিবিদ ভারতীয় বংশোদ্ভূত গীতা গোপীনাথ। জানান, এ বছর সেখানে বৃদ্ধির সম্ভাবনা নামিয়ে ৩% করেছেন তাঁরা। বিশ্ব জোড়া আর্থিক মন্দার পরে যা সবচেয়ে কম।