দিল্লির তখ্‌ত দখলে যে প্রতিশ্রুতি গত বার নরেন্দ্র মোদীর মূল অস্ত্র ছিল, এ বার ভোটে তা-ই গলার কাঁটা হয়ে উঠছে তাঁর সরকারের। বছরে দু’কোটি চাকরি।

নতুন কাজের সুযোগ তৈরি তো দূর, তাঁর জমানায় বহু জন কাজ খুইয়েছেন বলে নিয়মিত বিঁধছেন বিরোধীরা। সেই ছবি উঠে আসছে বিভিন্ন পরিসংখ্যানেও। এ বার উপদেষ্টা সংস্থা অক্সফ্যাম ইন্ডিয়ার সমীক্ষাও জানাল, এ দেশে কাজের বাজারের অবস্থা ভয়াবহ, হতাশাজনক। এবং তার জন্য কেন্দ্রের বর্তমান নীতিই বহু অংশে দায়ী। পরিস্থিতি বদলাতে তাদের পরামর্শ, উন্নয়নের যে নীতি আঁকড়ে সরকার চলছে, তা বদলে আগে শ্রমনিবিড় কাজে জোর দিক তারা। 

আগের লোকসভা ভোটের প্রচারে বছরে দু’কোটি কাজের সুযোগ তৈরির কথা নিয়মিত বলতেন নরেন্দ্র মোদী। বিরোধীদের মতে, তা ‘জুমলা’। আর এ দিন অক্সফ্যাম ইন্ডিয়ার সিইও অমিতাভ বেহরের কথায়, কাজের সুযোগ তৈরির বাগাড়ম্বর ও কর্মীদের মধ্যে লিঙ্গবৈষম্য কমানোর কথা বলা সত্ত্বেও বাস্তব পরিস্থিতি ভয়াবহ। তাঁদের রিপোর্ট বলছে, একই কাজের জন্য মহিলা কর্মীরা পুরুষদের চেয়ে ৩৪% কম বেতন পান। সংস্থার ডিরেক্টর অব পলিসি রিসার্চ অ্যান্ড ক্যাম্পেন্স রানু ভোগালেরও দাবি, গত কয়েক বছরে কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভাল বা উন্নত মানের কাজের সুযোগ তৈরি হয়নি। 

এই সমস্যার জন্য কেন্দ্রের বর্তমান নীতিকেই দায়ী করেছে অক্সফ্যাম। তাদের দাবি, ভারত উন্নয়নের জন্য যে মডেলের হাত ধরেছে, ত্রুটি রয়েছে তার কাঠামোতেই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিল্প এখন এত বেশি যন্ত্রনির্ভর যে, শুধু লগ্নির অঙ্ক শুনে কর্মসংস্থানের সংখ্যা আঁচ করা যায় না। কয়েক হাজার কোটির লগ্নিতেও অনেক সময়ে চাকরি পেতে পারেন জনা কয়েক। অক্সফ্যামেরও পরামর্শ, যন্ত্রনির্ভর শিল্পের বদলে শ্রমনিবিড় শিল্পের উন্নতিতে কোমর বাঁধুক কেন্দ্র।