×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ জুন ২০২১ ই-পেপার

টাটা সংস্থার পর্ষদেও মিস্ত্রি বিদায়ের পালা

নিজস্ব প্রতিবেদন
১৩ ডিসেম্বর ২০১৬ ০২:৪১
টাটা গোষ্ঠীর সদর দফতর বম্বে হাউজের সামনে সাইরাস মিস্ত্রি। —ফাইল চিত্র।

টাটা গোষ্ঠীর সদর দফতর বম্বে হাউজের সামনে সাইরাস মিস্ত্রি। —ফাইল চিত্র।

দু’পক্ষের কথার লড়াই মোড় নিয়েছে কাদা ছোড়াছুড়িতে। গোষ্ঠীর চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর পরে টাটা সংস্থাগুলির মাথা থেকে সাইরাস মিস্ত্রিকে হটানোর যুদ্ধ শুরু করেছে টাটারা। সোমবার মিস্ত্রি বিদায়ের পালা শুরু হল সংস্থাগুলির পরিচালন পর্ষদ থেকেও। এ দিন বিশেষ সাধারণ সভায় ভোটাভুটির মাধ্যমে পর্ষদে মিস্ত্রির সদস্যপদ খারিজ করলেন টাটা ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ারহোল্ডাররা।

টাটা গোষ্ঠীর মূল সংস্থা টাটা সন্স। টাটা ইন্ডাস্ট্রিজ তার শাখা। তার পরিচিতি আর পাঁচটি বড় টাটা সংস্থার মতো নয়। কিন্তু এ দিন সেখান থেকে মিস্ত্রির অপসারণকে গুরুত্ব দিচ্ছে শিল্পমহল। মঙ্গলবার তাঁকে পর্ষদ থেকে সরাতে সভা ডেকেছে টিসিএস। তার আগে টাটা ইন্ডাস্ট্রিজ থেকে মিস্ত্রির বিদায়কে সেই বড় যুদ্ধের তাল ঠোকা হিসেবে দেখছেন অনেকে।

Advertisement



টাটা ইন্ডাস্ট্রিজের হাতে অংশীদারি রয়েছে টাটা মোটরস, টাটা পাওয়ার, টাটা স্টিলের মতো সংস্থার। আর ওই সমস্ত সংস্থার পর্ষদ থেকেই মিস্ত্রিকে তাড়াতে চায় টাটারা। সে দিক থেকেও এই পদক্ষেপ তাৎপর্যপূর্ণ।

টাটাদের দাবি, নিজেই সংস্থাগুলির পর্ষদ ছাড়া উচিত মিস্ত্রির। কিন্তু তিনি তা না-করায়, তাঁকে ছেঁটে ফেলতে বদ্ধপরিকর তারা। উল্টো দিকে, এখনও রণে ভঙ্গ দেওয়ার লক্ষণ দেখাননি মিস্ত্রি। আভাস দেননি সরার।

এমন ‘রক্তক্ষয়ী’ লড়াইয়ের মধ্যেই এ দিন সংস্থাগুলির পর্ষদ থেকে মিস্ত্রিকে সরানোর রাস্তায় হাঁটতে শুরু করল টাটারা। টাটা ইন্ডাস্ট্রিজে সেই কাজ সারা। টিসিএসে সভা মঙ্গলবার। যেখানে টাটা সন্সের অংশীদারি ৭৩.২৬%। বাকি সংস্থার (টাটা টেলি, ইন্ডিয়ান হোটেলস, টাটা স্টিল, টাটা মোটরস, টাটা কেমিক্যালস, টাটা পাওয়ার) বিশেষ সভাও এ মাসে।

টাটা সন্সের প্রায় ১৮.৫% শেয়ার শাপুরজি-পালোনজি গোষ্ঠীর হাতে। তার চেয়ারম্যান পালোনজি মিস্ত্রিরই ছেলে সাইরাস। তা ছাড়া, মিস্ত্রি যে ভাবে খরচ কমিয়ে সংস্থাগুলিকে লাভজনক করার চেষ্টা করছিলেন, তা সমর্থন পাচ্ছিল টাটা গোষ্ঠীতে অংশীদারি থাকা বিভিন্ন আর্থিক সংস্থার। টাটা কেমিক্যালস, ইন্ডিয়ান হোটেলসে স্বাধীন ডিরেক্টরদের সমর্থনও পেয়েছেন তিনি।

শোনা যাচ্ছে, টিসিএসের সভার আগে দুই শিবিরেই পরিবেশ থমথমে। বৈঠকে উপস্থিত থাকার সূত্রে সামনা-সামনি টক্করও হতে পারে রতন টাটা ও মিস্ত্রির। শত বাধাতেও মিস্ত্রি বিদায়ই এখন পাখির চোখ টাটাদের সদর দফতর বম্বে হাউসের।

Advertisement