পেট্রল না ডিজেল— জ্বালানি অনুযায়ী গাড়ির সামনের কাচে বিভিন্ন রঙের স্টিকার লাগানোর কথা বলেছে কেন্দ্র। যাতে দূষণ বাড়লে জ্বালানির ভিত্তিতে বিভিন্ন গাড়িকে সহজে চিহ্নিত করা যায়। তাতে আপত্তি নেই গাড়ি নির্মাতাদের সংগঠন সিয়াম-এর। কিন্তু তাদের মতে, জ্বালানি নয়, দূষণ বিধির মাপকাঠির (ভারত স্টেজ) ভিত্তিতেই সেই বিভাজন হওয়া উচিত। নইলে শুধু আলাদা জ্বালানির জন্য কোপ পড়তে পারে উন্নত প্রযু্ক্তির, কম দূষণের নতুন গাড়ির উপরেও।

সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট দিল্লি সংলগ্ন এলাকায় (এনসিআর) জ্বালানির ভিত্তিতে গাড়িতে আলাদা স্টিকার লাগাতে বলেছে। সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক তার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। ভবিষ্যতে সারা দেশেই এই ব্যবস্থা চালুর কথা ভাবা হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে খবর।

এই প্রসঙ্গেই সিয়ামের ডেপুটি এগ্‌জ়িকিউটিভ ডিরেক্টর অতনু গঙ্গোপাধ্যায়ের মতে, দূষণ বিধির মাপকাঠির ভিত্তিতে তৈরি গাড়ির শ্রেণি বিন্যাস করা হলে সুফল মিলবে। তিনি জানান, এ নিয়ে সড়ক পরিবহণ মন্ত্রককে চিঠিও দিয়েছেন সিয়াম প্রেসিডেন্ট রাজন ওয়াধেরা। 

নির্দেশ মেনে

• সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মেনে জ্বালানির ধরন অনুযায়ী গাড়িতে হলোগ্রাম-স্টিকার লাগাতে বলেছে কেন্দ্র। প্রথমে দিল্লি ও তার সংলগ্ন অঞ্চলে (এনসিআর)। পরে সারা দেশেই চালুর ভাবনা।

কোথায় কী?

• পেট্রল ও সিএনজি: হালকা নীল
• ডিজেল: কমলা

হঠাৎ কেন?

• যাতে দূষণ নিয়ন্ত্রণের জন্য স্টিকার দেখেই বেশি দূষণকারী গাড়ি চিহ্নিত করা সহজ হয়। চালু ধারণা হল, সাধারণত পেট্রলের থেকে ডিজেল গাড়িতে দূষণ বেশি। 

পাল্টা যুক্তি

• অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, পেট্রল থেকেই বরং কার্বন ডাই অক্সাইড বার হয় ডিজেলের থেকে ২০% বেশি। 
• গাড়ি শিল্পের মতে, নিছক জ্বালানি চিনে নয়, স্টিকার লাগানো হোক দূষণ বিধির মাপকাঠির ভিত্তিতে। যেমন আলাদা স্টিকার হতে পারে বিএস-৩, বিএস-৪, বিএস-৬ ইত্যাদি গাড়ির জন্য। 

পেট্রলের চেয়ে সাধারণত ডিজেল গাড়িতে দূষণ কম হয় বলে প্রচলিত ধারণা। গাড়ি শিল্পের অনেকের আশঙ্কা, সে ক্ষেত্রে দূষণ বাড়লে ডিজেল গাড়িতে কোপ পড়তে পারে। সে ক্ষেত্রে হয়তো দেখা যাবে বিএস-২ বা বিএস-৩ মাপকাঠির পেট্রল গাড়ি ছাড় পেলেও, কোপ পড়ছে বিএস-৪ ডিজেল গাড়িতে। অথচ বিধি অনুযায়ী, তাতে দূষণ কম হওয়ার কথা।

বিশেষজ্ঞদের একাংশেরও দাবি, বহু ক্ষেত্রে ডিজেল গাড়ির চেয়ে পেট্রলে দূষণ বেশি। সালফারও উন্নত মানের ডিজেলে অনেক কম।  উপরন্তু ২০২০ থেকে আরও উন্নত বিএস-৬ মাপকাঠি চালু হবে। তখন পেট্রল ও ডিজেল গাড়ির স্টিকার একই হওয়া উচিত বলে মত তাঁদের।