চিন-মার্কিন বাণিজ্য সংঘাত নিয়ে করা এক মন্তব্যের জেরে বেকায়দায় পড়লেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, শুল্ক-যুদ্ধের জেরে চিন লোকসান গুনছে। লাভবান হচ্ছে আমেরিকা। ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই এক সমীক্ষায় উঠে এল তাঁর দেশের বাণিজ্য মহলেরই তোলা সম্পূর্ণ উল্টো অভিযোগ। 

বুধবার ওই সমীক্ষা জানাল, সব চেয়ে বেশি উৎকণ্ঠায় আছে আসলে চিনে ব্যবসা করা মার্কিন সংস্থাগুলিই। কারণ, চিন থেকে আমেরিকায় ঢোকা বিপুল পণ্যে যে ভাবে কর চাপিয়েছে ওয়াশিংটন, তাতে সেখানে তাদের ব্যবসার ভবিষ্যৎ নিয়ে হতাশা ক্রমশ বাড়ছে। বহু মার্কিন সংস্থাই শুল্ক যুদ্ধের ধাক্কায় চিনের স্থানীয় বাজারে তাদের আয় ও লগ্নি কমার আশঙ্কা করছে। 

ট্রাম্পের বক্তব্য ছিল, শুল্ক বসিয়ে আমেরিকার কোটি কোটি ডলার মুনাফা হয়েছে। কিন্তু ক্ষতি গুনেছে চিন। গিয়েছে ৩০ লক্ষ কাজও। বহু সংস্থা ওই দেশ ছাড়ছে। তাই চিন এখন তাঁদের সঙ্গে চুক্তি করতে মরিয়া। কিন্তু চিনে ব্যবসা সংক্রান্ত বার্ষিক রিপোর্টে আমেরিকান চেম্বার অব কমার্সের দাবি, বেজিংকে বাণিজ্য চুক্তি করতে ও বাজার খুলে দিতে বাধ্য করার জন্য ট্রাম্পের এই শুল্ক অস্ত্রের বিরোধিতা করেছে ৭৫% মার্কিন সংস্থাই। একই সঙ্গে ট্রাম্প যা-ই করুন ও বলুন, মার্কিন বণিকসভার বেশির ভাগ সদস্যেরই মত, আগামী দিনে বাণিজ্য মহলের কাছে কার্যকরী থাকবে চিনের মতো এমন এক সম্ভাবনাময় বাজারই।