এত দিন কাটমানি ফেরতের দাবি উঠছিল জেলায় জেলায়। এ বার খোদ কলকাতা পুরসভার কাউন্সিলর জীবন সাহার বিরুদ্ধে ‘কাটমানি’ নেওয়ার অভিযোগে সরব হলেন নাগরিকরা। শুধু তাই নয়, বেআইনি কার্যকলাপের তালিকা তৈরি করে পোস্টার, ফেস্টুন, ব্যানারে লিখে তা ছড়িয়ে দেওয়া হয় এলাকায়। এই ঘটনায় রীতিমতো অস্বস্তিতে পড়েছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। যদিও জীবন সাহা ঘনিষ্ঠমহলে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

এই ঘটনার নেপথ্যে বিজেপির হাত রয়েছে বলে মনে করছে তৃণমূল। কিছু দিন আগেই ট্যাংরা এলাকায় একটি খেলার মাঠ, বেআইনি নির্মাণকে কেন্দ্র করে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। জীবন সাহার অনুগামীদের বিরুদ্ধে ‘কাটমানি’ নিয়ে বিভিন্ন বেআইনি কাজের অভিযোগ ওঠে।

এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ বাড়তে থাকে। সোমবার সকালে ক্যানাল সাউথ রোডে ‘বেলেঘাটা বিধাননসভা ক্ষেত্র নাগরিক মোর্চা’-র তরফে কাটমানির অভিযোগ তুলে ব্যানার, ফেস্টুন বিভিন্ন জায়গায় লাগিয়ে দেওয়া হয়। অভিযোগ, পরে ওই ব্যানার পোস্টারগুলি সরিয়ে দেন জীবন সাহার অনুগামীরা। এ বিষয়ে জীবন সাহাকে ফোন করা হলে, তাঁর কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি। 

এই সেই ব্যানার। 

খাল বোজানো থেকে শুরু করে বেআইনি বাড়ি নির্মাণে মদত দেওয়া, সেখান থেকে কাটমানি নেওয়া। এলাকার সিন্ডিকেট ব্যবসা-সহ বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে জীবন সাহার বিরুদ্ধে। কলকাতা কর্পোরেশন থেকে জলের সংযোগ নেওয়ার জন্যেও কাটমানি নেওয়া হচ্ছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

৫৭ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জীবন সাহা ৭ নম্বর বরোর চেয়ারম্যানও।তিনি আবার উত্তর কলকাতা যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি। তাঁর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ ওঠায় দলের অন্দরে প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে এ বিষয়ে তৃণমূলের তরফ থেকে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

আরও পড়ুন: বাঁচার মরিয়া চেষ্টা, কর্নাটকে বিদ্রোহীদের ফেরাতে কুমারস্বামী ছাড়া সব মন্ত্রীর ইস্তফা

আরও পড়ুন: এক ধাক্কায় ৯০০ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স, আশঙ্কার মেঘ দেখছে শেয়ার বাজার