সকালে মিছিল আর দুপুরের পরে কয়েক পশলা বৃষ্টি— এই দুইয়ের যৌথ আক্রমণে ব্যাহত হল শহরের যান চলাচল। দীর্ঘ যানজটে আটকে রইল মহানগরের একটি বড় অংশ। নিত্যযাত্রীদের পাশাপাশি দুর্ভোগে পড়লেন পুজোর বাজার করতে বেরোনো মানুষও।

লালবাজার জানিয়েছে, মঙ্গলবার, সপ্তাহের দ্বিতীয় কাজের দিন সকালে শহরের যান চলাচল প্রথমে বাধা পায় আদিবাসীদের একটি মিছিলের জন্য। ধর্মতলায় তাঁদের সমাবেশের জন্য হাওড়া ও শিয়ালদহ থেকে দফায় দফায় মিছিল আসার ফলে এ দিন বেলা ১১টার পর থেকে যানজটে নাজেহাল হয় উত্তর থেকে মধ্য এবং দক্ষিণ কলকাতার বিভিন্ন এলাকা। ওই সমাবেশ শেষ হতেই নিম্নচাপের বৃষ্টি শুরু হয় শহর জুড়ে। আর তাতেই দুপুরের পরে শহরের বিভিন্ন রাস্তায় যান চলাচল শ্লথ হতে শুরু করে। কয়েকটি রাস্তায় জল জমে যাওয়ায় অবস্থা আরও খারাপ হয়। ট্র্যাফিক পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, মিছিলের সময়ে ওই সব রাস্তায় গাড়ি গতি বাধা পাওয়ায় তাদের দ্রুত বিকল্প পথে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তবে সমাবেশের পরেই বৃষ্টি নামায় মধ্য এবং উত্তর কলকাতার যান চলাচল পুরো বন্ধ না হলেও শ্লথ হয়ে যায়।

এ দিন রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়ে সমাবেশে যোগ দিতে বেলা ১১টার পর থেকে হাওড়া ও শিয়ালদহ স্টেশন থেকে আসতে শুরু করে আদিবাসীদের মিছিল। যার জেরে ব্রেবোর্ন রোড, স্ট্র্যান্ড রোড, বেন্টিঙ্ক স্ট্রিট, চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউ, জওহরলাল নেহরু রোড, এস এন ব্যানার্জি রোডে যান চলাচল ব্যাহত হয়। মেয়ো রোড এবং ওল্ট কোর্ট হাউস স্ট্রিটেও একই ঘটনা ঘটে।

বৃষ্টিতে চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউ, মহাত্মা গাঁধী রোড, স্ট্র্যান্ড রোড এবং মা ও এ জে সি বসু রোড উড়ালপুলে যানজট হয়। বড়বাজারে পুজোর কেনাকাটার জন্য ভিড় ছিল। সেখানে জল জমায় ক্রেতারা সমস্যায় পড়েন।