Advertisement
২২ জুন ২০২৪
Mumtaz on Pakistani Actors and Singers

‘ওঁদের প্রতিভা আছে’, পাকিস্তানি শিল্পীদের বয়কট না করার আর্জি জানালেন মুমতাজ়

উরিতে জঙ্গি হামলার পরে দেশের বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির সিংহভাগ নির্মাতা পাকিস্তানি শিল্পীদের বয়কটের ডাক দিয়েছিলেন। প্রায় আট বছর পরে সেই প্রসঙ্গে মুখ খুললেন মুমতাজ়। রাহত ফতেহ্‌ আলি খান ও ফওয়াদ খানের সঙ্গে পুরনো স্মৃতির কথা বললেন অভিনেত্রী।

মুমতাজ়।

মুমতাজ়।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
কলকাতা শেষ আপডেট: ২২ এপ্রিল ২০২৪ ১৯:৩৫
Share: Save:

পাকিস্তানি অভিনেতা ও সঙ্গীতশিল্পীদের পক্ষে সওয়াল করলেন অভিনেত্রী মুমতাজ়। ২০১৬ সালে উরিতে সেনা দফতরে জঙ্গি হামলার ঘটনা আজও স্পষ্ট স্মৃতির পাতায়। ঘটনার পরে দেশের নানা প্রান্তে দাবি ওঠে, পাকিস্তানি শিল্পীদের বয়কট করা হোক। রাহত ফতেহ্‌ আলি খান, আতিফ আসলাম, ফওয়াদ খানদের বলিউড থেকে বিতাড়িত করার দাবি জানানো হয়। ঘটনা নিয়ে দ্বিমত পোষণ করে বিনোদন দুনিয়া।

সময়ের স্রোতে উত্তেজনা কিছুটা থিতিয়ে পড়লেও সম্প্রতি বর্ষীয়ান অভিনেত্রী মুমতাজ়ের কথায় আবার সেই প্রসঙ্গ উঠে এল। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বললেন, “পাকিস্তানি শিল্পীদের ভারতে এসে কাজ করতে দেওয়া উচিত। তাঁদের প্রতিভা আছে। আমি এটা বলছি না, মুম্বইয়ে প্রতিভার অভাব আছে। কিন্তু, ওঁদেরও বলিউডে কাজ করার সুযোগ দেওয়া উচিত।”

কিছু দিন আগে মুমতাজ়ের সঙ্গে ফওয়াদ খান ও রাহত ফতেহ্‌ আলি খানের ছবি নিয়ে চর্চা শুরু হয় সমাজমাধ্যমে। অভিনেত্রী জানিয়েছেন, ছবিগুলি সাম্প্রতিক কালের নয়, বেশ পুরনো। তবে প্রতিবেশী দেশে রাহত ফতেহ্‌ আলি খান এবং ফওয়াদ খানের উষ্ণ অভ্যর্থনার স্মৃতি আজও মুগ্ধ করে তাঁকে।

পাকিস্তানে থাকাকালীন ফওয়াদের সঙ্গে দেখা করতে যান অভিনেত্রী। মুমতাজ় জানালেন, তাঁর সঙ্গে দেখা করার জন্য আস্ত একটি রেস্তরাঁ বুক করে ফেলেছিলেন ফওয়াদ। অসুস্থতা সত্ত্বেও অভিনেত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন রাহত। অভিনেত্রী আরও বললেন, “ওঁরা আমাদের থেকে একেবারেই আলাদা নন। যেখানেই আমি গিয়েছি, মানুষ আমাকে আর আমার বোনকে ভালবাসা আর উপহারে ভরিয়ে তুলেছেন। ওঁরা আমার সব ছবি ও গান সম্পর্কে অবহিত।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE