প্রখ্যাত শরীরচর্চা কেন্দ্রের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হওয়াই কাল হল হৃতিক রোশনের। তাঁর নামে প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করা হল হায়দরাবাদ পুলিশে। অভিযোগকারীর দাবি, তিনি ওই জিম ব্যবহারকারী। কিন্তু জিমের বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ তাঁর। ওই জিমে নাকি আগে থেকে নাম নথিভুক্ত করা হলেও পছন্দসই স্লট পাওয়া যেত না। কারণ সর্বোচ্চ যতজনকে পরিষেবা দেওয়া যায়, সেই পরিকাঠামোকে ছাপিয়ে অতিরিক্ত ব্যবহারকারীকে সময় দেওয়া হতে। ফলে যে গুণমানের পরিষেবা পাওয়ার কথা, তা পাওয়া যায় না। এই অভিযোগে জিমের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হৃতিকের নামেই মামলা ঠুকে দিলেন এক উপভোক্তা। অনিয়মের প্রতিবাদ করায় নাকি অভিযোগকারীকে জিমের অ্যাপও ব্যবহার করতে দেওয়া হয়নি। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে হায়দরাবাদের কেপিএইচবি কলোনি থানা হৃতিক রোশন এবং জিম কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে।

আরও পড়ুন: ‘আশ্চর্য’ পরিবর্তন! নতুন ছবিতে চেনাই যাচ্ছে না এই বিগ বস প্রতিযোগীকে

আরও পড়ুন: খুনি কে? প্রকাশ পেল টানটান রহস্যের ‘জাজমেন্টাল হ্যায় কেয়া’-র ট্রেলার

পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে শশীকান্ত নামে ওই অভিযোগকারীর বক্তব্য, গত বছর ডিসেম্বরে তিনি প্রায় সাড়ে সতেরো হাজার টাকা দিয়েছেন। কিন্তু জিমের প্রতিশ্রুতিমতো পছন্দসই স্লট পাননি। শরীরচর্চাকেন্দ্রের তরফে একটি প্যাকেজ দেওয়া হয়েছিল। ওজন কমানোর প্যাকেজে ছাড় দেওয়া হয়েছিল সেই অফারে। অভিযোগকারীর দাবি, হৃতিক রোশনের বিজ্ঞাপনের মুখ হওয়ায় তাঁর মতো আরও অনেকে এই অফার নিয়েছে। তাই প্রতারণার দায়ে হৃতিকও অভিযুক্ত।

ইদানীং বিতর্ক যেন পিছু ছাড়ছে না হৃতিকের। কঙ্গনা রানাউতের সঙ্গে তাঁর টানাপড়েনের জের এখনও জারি। পারিবারিক ঝামেলায় তাঁর বিরুদ্ধে গিয়েছেন নিজের বোন সুনয়নাও। সুনয়নার অভিযোগ, মুসলিম ছেলের প্রেমে পড়ায় তাঁর উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেছে রোশন পরিবার। সুনয়না যোগাযোগ করেছিলেন কঙ্গনার সঙ্গেও। পারিবারিক অত্যাচারকে তিনি নরকযন্ত্রণার সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। সেই বিতর্কের গোদের মধ্যেই জালিয়াতির বিষফোঁড়া হৃতিকের। তাঁর এবং জিম কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪০৬ ও ৪২০ ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।