নিত্যদিন উত্তরোত্তর বেড়েই চলেছে তাঁদের ভক্তের সংখ্যা। কিন্তু সবই কি আসল? ভক্তের ভিড়ে কে আসল, কে নকল বোঝা দায়! সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, প্রিয়ঙ্কা চোপড়া এবং দীপিকা পাড়ুকোনের ইনস্টাগ্রাম ভক্তের তালিকায় নকলের সংখ্যাও কম নয়। দশ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে ওই সমীক্ষায়। সেখানে দীপিকার স্থান ষষ্ঠ, প্রিয়ঙ্কা দশ নম্বরে। ভারতীয়দের মধ্যে তাঁরা দু’জনই রয়েছেন এই তালিকায়।

বলা হচ্ছে ইনস্টাগ্রামে দীপিকার ভক্তদের মধ্যে ৪৮ শতাংশই নকল। প্রিয়ঙ্কার ভক্তদের মধ্যে নকলের সংখ্যা ৪৬ শতাংশ। কিছু দিন আগেই ইনস্টাগ্রামে ছবি দিয়ে রোজগারের তালিকায় ভারতীয়দের মধ্যে শীর্ষে ছিলেন প্রিয়ঙ্কা। তার কারণ অবশ্যই তাঁর ফলোয়ারের সংখ্যা। কিন্তু সেখানেই যে এত বড় ফাঁকি তা কে জানত!

সোশ্যাল মিডিয়া এখন এতটা গুরুত্বপূর্ণ যে, তা দিয়ে অনেক হিসেবনিকেশ নির্ধারিত হয়। সুতরাং সেখানে ভক্ত সংখ্যাও গুরুত্বপূর্ণ। কার ছবিতে কটা লাইক, শেয়ার, কমেন্ট সব কিছুই বিবেচনা করা হয়। ইন্ডাস্ট্রির অন্দরের খবর, সেলেবদের পাবলিসিটি ম্যানেজাররাই এই নকল ভক্তদের জোগান দেন। 

এই সমীক্ষা অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি নকল ভক্ত এলেন ডিজেনেরসের। ৫৮ শতাংশ ফেক ফলোয়ার্স এই সঞ্চালকের। তালিকায় আছেন কার্দাশিয়ান বোনেরা। কোর্টনির ৪৯ শতাংশ, কিম এবং কোলের পরিসংখ্যান ৪৪ শতাংশ। রয়েছেন কেটি পেরি, মাইলি সাইরাস এবং আরিয়ানা গ্রান্দে। উল্লেখযোগ্য, মহিলাদেরই ফেক ফলোয়ারের সংখ্যা কিন্তু বেশি।