×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৮ জুন ২০২১ ই-পেপার

ফের ‘রবীন্দ্র আমেজ’-এ অর্জুন, মিমির বদলে সফরসঙ্গী দর্শনা

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০১ অক্টোবর ২০২০ ২১:২০
দর্শনা- অর্জুন।

দর্শনা- অর্জুন।

করোনা ঠেকাতে সত্যিই আপন জনেরা এখন পর। সামাজিক দূরত্ব বিধিতে দেখাসাক্ষাৎ অনিয়মিত। এই আবহেও রবীন্দ্রনাথ সমসাময়িক! কবি জানতেন, কোনও একদিন এমন দূরত্ব তৈরি হবে মানুষের মধ্যে? বিশ্ব কবি যে ভাবনা থেকেই তাঁর পূজা-প্রেম পর্যায়ের গান ‘‘মাঝে মাঝে তব দেখা পাই’’ লিখুন, পরিচালক ধ্রুব বন্দ্যোপাধ্যায়ের কৃতিত্বে সেই গান যেন ‘থিম সং’! যার মধ্যমণি অর্জুন চক্রবর্তী, দর্শনা বণিক। দু’জনেই এর আগে কাজ করেছেন রবীন্দ্র আধারে তৈরি ‘গানের ওপারে’ আর ‘ল্যাবরেটরি’-তে।

এই বিশেষ অনুভূতিই কি মিউজিক ভিডিয়ো বানানোর তাগিদ? মুক্তির আগে কৌতূহলী প্রশ্ন ছিল ধ্রুবর কাছে। হেসে জানালেন, ‘‘একেবারেই তা নয়। অনেক দিন ধরেই গান নিয়ে কাজের ইচ্ছে। সুযোগ হয়ে উঠছিল না। এই গানটি আগে থেকেই রি-অ্যারেঞ্জন করা ছিল। অনেকের মতো আমারও খুব প্রিয়। ভাবলাম একে আজকের ধারায় প্রেজেন্ট করলে কেমন হয়? তারই ফসল ‘‘মাঝে মাঝে তব দেখা পাই’। ’’

পরিচালক আরও জানালেন, এই ভিডিয়ো নতুন আঙ্গিকে বানানোর আগে নিজেকে প্রস্তুত করেছেন। কারণ, তিনিও এই একটি ব্যাপারে এখনও প্রচণ্ড গোঁড়া! নিজেকে বোঝানোর পাশাপাশি লকডাউন উঠতেই মাত্র একদিন সময় নিয়েছেন। বর্ধমানের বাওয়ালি রাজবাড়িতে টিম নিয়ে গিয়ে ২৪ ঘণ্টার শুটিং। সঙ্গে অর্জুন-দর্শনার অক্লান্ত পরিশ্রম। শেষ হওয়ার পর পুরো কাজ দেখে তৃপ্ত তিনি।

Advertisement

আরও পড়ুন- ব্রেক আপের সময় নিজের হাতে মাথা মুড়িয়ে প্রতিজ্ঞা করেছি, সব করব প্রেম করব না: গাজী আব্দুন নূর

মিউডিক অ্যালবাম বানিয়ে ধ্রুবর উপলব্ধি, গল্পে গানের রেশ থাকলে আজও মানুষ মন দিয়ে দেখেন। এ ভাবেও পুরনো ঐতিহ্যকে বাঁচিয়ে রাখার একটা চেষ্টা করা যেতেই পারে। অর্জুন-দর্শনা জুটি কি ওঁদের রবীন্দ্র ব্যাকগ্রাউন্ড ঠিক করে দিল? ‘‘ওঁদের মুখ-চোখের সারল্য। আমি এ রকমই টাটকা জুটি চেয়েছিলাম’’, জবাব পরিচালকের।

আরও পড়ুন- আমার উপর কাদা ছোড়া বন্ধ হোক, দীপিকাকে কটাক্ষ অনুষ্কার

খুশি অর্জুন-দর্শনাও। দু’জনেই আনন্দবাজার ডিজিটালকে জানিয়েছেন, ২৪ ঘণ্টায় একটি গান শুটিং করার অভিজ্ঞতা দারুণ। আগামী দিনেও এক সঙ্গে কাজ করতে চান তাঁরা।

নতুন মিউজিক ভিডিয়ো নিয়ে প্রযোজনা সংস্থা এসভিএফ কর্তৃপক্ষ একদম ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরলেন, যাঁরা অতিমারীর কোপে প্রিয় সান্নিধ্য থেকে দূরে তাঁদের এই গান জানাবে, সাময়িক বিচ্ছেদ আসলে বিচ্ছেদই নয়। প্রকৃত প্রেম অবিচ্ছিন্ন মৃত্যুর পরেও।

Advertisement