Advertisement
০৫ ডিসেম্বর ২০২২
Sudipa Chatterjee

Sudipa-Ankush: ‘আপনার নতুন স্বামী’? অঙ্কুশের সঙ্গে ছবি দিতেই কটাক্ষের শিকার সুদীপা!

যদি ‘ভাই’কে ‘স্বামী’তে বদলে দিতে পারেন তা হলে ‘অশিক্ষা’ শব্দটি ব্যবহার করে তিনি বিন্দু মাত্র ভুল করেননি 

অঙ্কুশ হাজরা এবং সুদীপা চট্টোপাধ্যায়

অঙ্কুশ হাজরা এবং সুদীপা চট্টোপাধ্যায়

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ৩১ জানুয়ারি ২০২২ ১৮:৩৪
Share: Save:

সব কিছুই অনুরাগীদের সঙ্গে ভাগ করে নিতে ভালবাসেন সুদীপা চট্টোপাধ্যায়। কটাক্ষের শিকারও হন। এই যেমন রবিবার হয়েছেন তিনি। কেলেঙ্কারির সূত্রপাত অঙ্কুশ হাজরার সঙ্গে তোলা সুদীপার একটি ছবি। মন্তব্যে ইংরেজিতে লিখেছিলেন, ‘আরও এক মায়ের সন্তান, আমার ভাই’। সঙ্গে সঙ্গে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন এক দল নেট বাসিন্দা। তাঁদের কটাক্ষ, ‘ইনি আপনার নতুন স্বামী?’ সুদীপার গলার হার দেখেও বহু জনের মন্তব্য, ‘হারটি রুপোর না সোনার? আপনি তো আবার নকল পরেন না!’

Advertisement

পরপর দু’টি কারণে কটাক্ষের শিকার সুদীপা স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষুণ্ণ। তাঁর কড়া জবাব, ‘আমি জানতাম না, বাংলা ভাষা আজকাল এত কঠিন হয়ে গিয়েছে! অবশ্য কারওর কারওর কাছে। তাঁরা সহজ-সরল বাংলা ভাষা বা সামান্য ইংরেজিও বোঝেন না। বেশ খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে যে যাচ্ছি, বোঝাই যাচ্ছে।’ তার পরেই তাঁর উদ্বেগ, কোভিড হয়তো জয় করে নেওয়া যাবে। কিন্তু অশিক্ষা আর কুরুচি? জয় করা যাবে কী ভাবে? অ্যালার্জি আছে। তাই সোনা এবং রুপোর গয়না ছাড়া আর কিছুই পরতে পারেন না, সে কথাও জানান তিনি। এ দিকে, ‘রান্নাঘর’-এর কর্ত্রীর কথায় ‘অশিক্ষা’ শব্দটি ব্যবহৃত হতেই তুমুল বিরোধিতা শুরু।

অঙ্কুশের সঙ্গে নতুন কোনও কাজ করছেন সুদীপা? তাই ছবি ভাগ করেছেন? আনন্দবাজার অনলাইন জানতে চেয়েছিল সঞ্চালিকার কাছে। সুদীপার কথায়, ‘‘জি বাংলার একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের প্রচার শ্যুটে আমরা অংশ নিয়েছি। আমাদের সঙ্গে অপরাজিতা আঢ্যও আছেন। তা ছাড়া, আমাদের পুজোতেও অঙ্কুশ, বিক্রম চট্টোপাধ্যায়, ঐন্দ্রিলা সেন আসেন। তখনও ছবি ভাগ করে নিই। এ রকম মন্তব্য এই প্রথম।’’ তাই হতবাক তিনিও। দাবি, ‘‘ওঁরা আমার ছোট ভাই-বোন। ওঁদের মায়েদের আমি কাকিমা বলি। কাকিমা-তেও তো ‘মা’ শব্দটি রয়েছে। তাই ইংরেজিতে লিখেছিলাম, আরও এক মায়ের সন্তান, আমার ভাই।’’ এর পরেই পাল্টা প্রশ্ন করেছেন সুদীপাও, ‘‘লোকে কি ‘ব্রাদার’ শব্দের অর্থও ভুলে গেলেন? আমার তিন বছরের ছেলে জানে, ‘ব্রাদার’ মানে ভাই! কী করে মানুষের মন এতটা নীচুতে নেমে গেল?’’

নিজের কথার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে ‘অশিক্ষা’ শব্দের ব্যবহারকেও সমর্থন জানিয়েছেন সুদীপা। তাঁর মতে, আম-জনতা যদি ‘ভাই’ শব্দকে ‘স্বামী’তে বদলে দিতে পারেন তা হলে ‘অশিক্ষা’ শব্দটি ব্যবহার করে তিনি বিন্দু মাত্র ভুল করেননি। এও বলেন, ‘‘এঁদের প্রতি আমার করুণা হয়। অতিমারি এঁদের অনেক কিছু কেড়ে নিয়েছে। সেই শোকে এঁরা বিপর্যস্ত। রাজ্য বা রাষ্ট্রকে তো কিছু বলতে পারেন না! বদলে আমরা তারকারা রয়েছি। আমাদের পোস্টে যা খুশি লিখে মনের জ্বালা মেটাচ্ছেন।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.