Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ ই-পেপার

Bengal Polls: ঘুরিয়ে ধর্ষণের হুমকি! কৌশানীর উপর ক্ষুব্ধ শ্রীলেখা, ‘ভদ্র’ হওয়ার পরামর্শ রূপার

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৩ এপ্রিল ২০২১ ১৫:৩৪
শাসকদলের প্রার্থীর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন বাম সমর্থক শ্রীলেখা মিত্র, বিজেপি কর্মী রূপা ভট্টাচার্য সহ বহু মানুষ।

শাসকদলের প্রার্থীর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন বাম সমর্থক শ্রীলেখা মিত্র, বিজেপি কর্মী রূপা ভট্টাচার্য সহ বহু মানুষ।

সকাল থেকেই উত্তপ্ত শনিবারের রাজ্য রাজনীতি। সৌজন্যে শাসকদলের প্রার্থী কৌশানী মুখোপাধ্যায়ের একটি ভিডিয়ো। যেখানে বিজেপিকে ‘বাবা’ বলে তিনি কটূক্তি করেছেন। প্রচারে গিয়ে হুমকি দিয়েছেন জনগণকে, ‘ঘরে সবার কিন্তু মা-বোন আছে, ভোটটা ভেবে দিবি।’ শাসকদলের প্রার্থীর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন বাম সমর্থক শ্রীলেখা মিত্র, বিজেপি কর্মী রূপা ভট্টাচার্য সহ বহু মানুষ। শ্রীলেখার কথায়, এখনি কৌশানীর প্রার্থী পদ বাজেয়াপ্ত করা উচিত। তারকা-প্রার্থীকে ‘ভদ্র’ হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন রূপা।

কী বলেছেন শ্রীলেখা? নেট মাধ্যমে কৌশানীর মন্তব্যকে শাসকদলের ‘উন্নয়নের ভাষা’ বলে ব্যঙ্গ করেছেন। ওই ভিডিয়ো আরও একবার পোস্ট করে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘এই সাংঘাতিক হুমকিতে আমি বিস্মিত, হতবাক!’ অভিনেত্রীর দাবি, অবশ্যই কৃষ্ণনগর (উত্তর)-এর প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে নালিশ জানানো উচিত। শ্রীলেখার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল আনন্দবাজার ডিজিটাল। অত্যন্ত ক্ষুব্ধ অভিনেত্রীর প্রথম কথা, ‘‘কৃষ্ণনগরে একই ভাবে প্রয়াত অভিনেতা-বিধায়ক তাপস পাল হুমকি দিয়েছিলেন ‘ঘরে ছেলে ঢুকিয়ে দেব’ বলে। সেই কথার সুর কৌশানীর গলাতেও।’’ একই সঙ্গে জানালেন তিনি প্রচণ্ড ক্ষিপ্ত। তাঁর দাবি, কৌশানী ঘুরিয়ে ধর্ষণের হুমকি দিচ্ছেন। এখনও ক্ষমতাতেই আসেননি। তার আগেই এই! এলে কী করবেন? দলমত নির্বিশেষে এর প্রতিবাদ হওয়া উচিত।


Advertisement

এ দিকে কৌশানীর মন্তব্য বিজেপির হাতে নয়া হাতিয়ার হয়ে উঠে এসেছে। একের পর এক কটাক্ষ, মন্তব্যে ছেয়ে গিয়েছে নেট মাধ্যম। মুখ খুলেছেন বিজেপি কর্মী রূপা ভট্টাচার্যও। তিনি সরাসরি শাসকদলের প্রার্থীকে ‘ভদ্র মহিলা’ হয়ে ওঠার কথা বলেছেন! নেট মাধ্যমে সরব রূপার দাবি, ‘কৌশানি আপনি মূলত একজন অভিনেত্রী। তাই আপনার মধ্যে একজন পরিশীলিত মানুষ (শিল্পী হয়ে উঠতে না পারলেও) থাকা উচিত। অন্তত আমি সেটাই দাবি করি’।

আক্রমণাত্মক প্রশ্নও ছুঁড়েছেন, ‘এই কুৎসিত হুমকি দেয়া আপনার মুখে মানায়? যদি মনে করেন এটা করে আপনি তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের কাছের হবেন তা হলে জানবেন তাঁরাও আপনার এই দ্বিচারিতাকে মনে মনে ঘৃণা করেন’। তার পরেই পরামর্শ, ‘নেত্রী হওয়া বাদ দিন, আগে তো ভদ্র মহিলা হন!’


ভিডিয়ো নিয়ে রাজনৈতিক মহল্লা সরগরম হতেই নেট মাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছেন কৌশানী। ক্ষমা চেয়ে তাঁর প্রকৃত বক্তব্য জানাতেও ভোলেননি। তারকা-প্রার্থীর দাবি, তিনি বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলোর কথা বলতে গিয়ে এ কথা বলেছেন। উত্তর প্রদেশ, মধ্য প্রদেশ, দিল্লিতে দুপুর ৩টের পরেই মা-বোনেরা আর সুরক্ষিত নন। সে কথা মনে করিয়ে দিতে চেয়েছেন সবাইকে। পাশাপাশি বাংলা ‘দিদি’র ছায়ায় এখনও সুরক্ষিত, সেটাও বোঝাতে চেয়েছেন। তাঁর অভিযোগ, এই ভিডিয়োর একাংশ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বিকৃত করা হয়েছে তাঁর কথা। যদিও ততক্ষণে জল অনেক দূর গড়িয়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন

More from My Kolkata
Advertisement