Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২১ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

ঠাকরে-মূর্তিতে মালা, উদ্ধবকে বার্তা বিজেপির

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ০২:১৯
শ্রদ্ধা: বাল ঠাকরের মূর্তির সামনে বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফডণবীস। রবিবার মুম্বইয়ের শিবাজি পার্কে। ছবি: পিটিআই।

শ্রদ্ধা: বাল ঠাকরের মূর্তির সামনে বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফডণবীস। রবিবার মুম্বইয়ের শিবাজি পার্কে। ছবি: পিটিআই।

মহারাষ্ট্রে এনডিএ-বিরোধী জোট সরকার গড়ার কাজ এগোনোর মধ্যেই বালাসাহেব ঠাকরের মৃত্যু দিনে শিবসেনার উদ্দেশ্যে বার্তা দিতে তৎপর হল বিজেপি।

মুম্বইয়ের শিবাজি পার্কে আজ প্রাক্তন শিবসেনা প্রধান বাল ঠাকরের মূর্তিতে শ্রদ্ধা জানাতে যান বিজেপি নেতা দেবেন্দ্র ফডণবীস। সঙ্গে ছিলেন পঙ্কজা মুণ্ডে ও বিনোদ তাউড়ে। তার আগে টুইট করে ফডণবীস বলেন, ‘‘বালাসাহেব আমাদের আত্মবিশ্বাসের গুরুত্ব বুঝিয়েছিলেন।’’ সেখানে ফডণবীসের উদ্দেশে উড়ে আসে শিবসেনা কর্মীদের বিদ্রুপ। তবে বিচ্ছেদের আবহ তৈরি হলেও বিজেপি যে এখনও শিবসেনাকে পাশে চায়, সেই বার্তা দিতেই আজ পরিকল্পিত ভাবে সেখানে যান দেবেন্দ্র। কারণ, নিতিন গড়কড়ী থেকে মহারাষ্ট্রের আর এক শরিক নেতা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রামদাস অটওয়ােল পর্যন্ত অনেকেই মনে করছেন— শেষ মুহূর্তে ম্যাজিক হবে। সরকার গড়বে শিবসেনা-বিজেপি। অটওয়ালের দাবি, ‘‘অমিত শাহ আমায় আশ্বাস দিয়েছেন, চিন্তার কিছু নেই। বিজেপি-শিবসেনার জোট সরকারই হতে চলেছে মহারাষ্ট্রে।’’

পাশে থাকার বার্তা দিতে আজ এক দিকে মুম্বইয়ে যেমন বালাসাহেবের সপ্তম মৃত্যুদিনকে বেছে নেয় বিজেপি, অন্য দিকে দিল্লিতে শিবসেনার উপর পাল্টা চাপ বাড়ানোর কৌশল নিতে পিছপা হননি নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহেরা। আজকের এনডিএ বৈঠকে গরহাজির শিবসেনাকে চাপে রাখতে সংসদের উভয় কক্ষে ওই দলের আসন পুনর্বিন্যাসের সিদ্ধান্ত নেয় মোদী সরকার। ঠিক হয়, সদ্য মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেওয়া শিবসেনা সাংসদ অরবিন্দ সাওয়ন্ত কাল থেকে লোকসভায় প্রথম সারির বদলে তৃতীয় সারিতে বসবেন। আসন পাল্টাচ্ছে অন্য শিবসেনা সাংসদদেরও। সংসদীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশী জানান, ‘‘লোকসভার মতো রাজ্যসভাতেও বিরোধী আসনে বসবেন শিবসেনা সদস্যরা।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: রুটিরুজির সমস্যাই অস্ত্র বিরোধীদের

জোট প্রশ্নে কথাবার্তা প্রায় চূড়ান্ত করতে আজ দিল্লিতে কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গাঁধীর সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা ছিল এনসিপি নেতা শরদ পওয়ারের। কিন্তু কালই এনসিপি সূত্রে ইঙ্গিত দেওয়া হয়, আজ বিকালে পুণেতে দলের কোর কমিটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন শরদ পওয়ার। ফলে বৈঠক শেষ করে দিল্লি যাওয়া সম্ভব হবে না বর্ষীয়ান পওয়ারের। এর পিছনে অন্য কারণ খোঁজা অনর্থক বলে দাবি করেছেন এনসিপি মুখপাত্র নবাব মালিক। তিনি জানান, ‘‘এই ধরনের জোট প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হতে সময় লাগে। সব দিক বিচার করেই এগোতে হয়।’’ এনসিপি সূত্রের মতে, সম্ভবত কাল দিল্লি যাবেন পওয়ার। সেখানে প্রথমে গুলাম নবি আজাদ ও মল্লিকার্জ্জুন খড়্গের মতো কংগ্রেস নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন পওয়ার। তার পরে বৈঠক হবে সনিয়ার সঙ্গে। সব কিছু ঠিক থাকলে জোট চূড়ান্ত করতে আগামী মঙ্গল বা বুধবার সনিয়া-শরদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন উদ্ধব ঠাকরে।

শিবসেনা সূত্রেও আজ দাবি করা হয়েছে, জোট প্রক্রিয়ার কাজ সুষ্ঠু ভাবে এগোচ্ছে। দলের নেতা সঞ্জয় রাউতের দাবি, ‘‘তিন দলই জোট গঠনের কাজ চালু রেখেছে। মুখ্যমন্ত্রী হবে শিবসেনা থেকেই।’’ যদিও বিরোধী দলের অনেকে মনে করছেন, ওই রাজ্যে সরকার গড়ার জন্য তলে তলে সক্রিয় রয়েছে বিজেপি। শিবসেনার সঙ্গেও কথাবার্তা চালাচ্ছে তারা। অনেকের ধারণা, শিবসেনাও দু’রাস্তা খোলা রেখেছে। এনসিপি-কংগ্রেসের পাশাপাশি বিজেপির সঙ্গেও আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। কারণ কংগ্রেস-বিরোধী রাজনীতি করে উঠে আসা শিবসেনার স্বাভাবিক মিত্র বিজেপিই। সেই কারণেই আজ বালাসাহেব প্রশ্নে পাশে থাকার বার্তা দিতে নামে বিজেপি। শিবসেনা নেতা সচিন আহির অবশ্য বলেন, ‘‘বিজেপি অনেক দেরি করে ফেলেছে। অনেক দূরে চলে এসেছি আমরা।’’

আরও পড়ুন

Advertisement