Advertisement
০৭ ডিসেম্বর ২০২২
Brinda Karat

অনুরাগদের বিরুদ্ধে বৃন্দার মামলা খারিজ

বৃন্দা আঁর আবেদনে বলেছিলেন, অনুরাগ ও প্রবেশের বিদ্বেষ-ভাষণ যে হিংসায় উস্কানি দিয়েছে, তার প্রমাণ দিল্লির দু’টি বিক্ষোভ-স্থলে তিন-তিন বার হামলাকারীদের গুলি বর্ষণ।

ছবি: সংগৃহীত।

ছবি: সংগৃহীত।

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ২৮ অগস্ট ২০২০ ০১:৪৫
Share: Save:

স‌ংশোধিত নাগরিকত্ব আইন-বিরোধী আন্দোলনকারীদের সম্পর্কে কুৎসা ও বিদ্বেষমূলক মন্তব্য করা এবং হিংসায় উস্কানি দেওয়া অভিযোগে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর এবং বিজেপি সাংসদ প্রবেশ শর্মার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়েরের নির্দেশ চেয়ে করা মামলা খারিজ করল দিল্লির একটি আদালত। সিপিএমের পলিটবুরো সদস্য বৃন্দা কারাট এবং কে এম তিওয়ারি দিল্লির নগর দায়রা আদালতে এই মামলাটি করে দুই বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়েরের জন্য পুলিশকে যাতে নির্দেশ দেওয়া হয়, সেই আবেদন করেছিলেন। অ্যাডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটান ম্যাজিস্ট্রেট বিশাল পাহুজা মামলাটি খারিজ করে দিয়ে জানান, মন্ত্রী ও সাংসদের বিরুদ্ধে এফআইআরের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমোদন প্রয়োজন। সেটাই আইন। সেই অনুমোদন ছাড়া পুলিশ এঁদের বিরুদ্ধে এফআইআর করতে পারে না। আবেদনকারীরা এ বিষয়ে কেন্দ্রের কাছে কোনও আবেদন জানাননি। তাই মামলা খারিজ হল।

বৃন্দা আঁর আবেদনে বলেছিলেন, অনুরাগ ও প্রবেশের বিদ্বেষ-ভাষণ যে হিংসায় উস্কানি দিয়েছে, তার প্রমাণ দিল্লির দু’টি বিক্ষোভ-স্থলে তিন-তিন বার হামলাকারীদের গুলি বর্ষণ। এর পরে তিনি দিল্লির পুলিশ কমিশনার ও পার্লামেন্ট স্ট্রিট থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত ইনস্পেক্টরের কাছে নালিশ জানিয়েও ব্যর্থ হন। তার পরে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন। পুলিশকে নালিশের তথ্যপ্রমাণও দাখিল করেন কারাট। তাঁর অভিযোগ ছিল, ঠাকুর ও শর্মা একাধিক বার আন্দোলনকারীদের ‘পাকিস্তানের এজেন্ট’, ‘বিশ্বাসঘাতক’, ‘দেশদ্রোহী’ তকমা দিয়ে বক্তৃতা করেছেন। ‘গদ্দারোঁকো গোলি মারো’ স্লোগান দিয়েছেন। তার পরেই বিক্ষোভকারীদের উপরে আক্রমণ হয়েছে, তাঁদের নিশানা করে গুলি ছোড়া হয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.