×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৯ জুলাই ২০২১ ই-পেপার

ভারতীয়দের তথ্য চিনে পাচার করছে আলিবাবা! শুরু হবে তদন্ত

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:৩৬
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

ভৌগোলিক আগ্রাসনের পর এ বার সাইবার জগতেও আগ্রাসনের অভিযোগ চিনের বিরুদ্ধে। ভারতীয় গোয়েন্দাদের অভিযোগ, দেশের বিভিন্ন বাণিজ্যিক সংস্থা তথা ভারতীয়দের স্পর্শকাতর নথিপত্র চিনে পাচার করছে সে দেশের বহুজাতিক সংস্থা আলিবাবা। এ দেশের ওই সংস্থার অন্তত ৭২টি সার্ভারের মাধ্যমে তা করা হচ্ছে বলে দাবি গোয়েন্দাদের। এ নিয়ে শীঘ্রই তদন্তও শুরু করবে ভারত।

মঙ্গলবার ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার এক শীর্ষ আধিকারিক জানিয়েছেন, মূলত ফ্রি ট্রায়ালের লোভনীয় অফারেই দেশের বিভিন্ন বাণিজ্যক সংস্থার কাছে ‘ফাঁদ’ পাতছে আলিবাবা। ইউরোপীয় সার্ভারের তুলনায় এ দেশে আলিবাবার ওই সার্ভারে তথ্যাদি জমা রাখার খরচ তুলনামূলক ভাবে কম হওয়ায় সেই ফাঁদে পা-ও দিচ্ছে ভারতীয় সংস্থাগুলি। এর পর ট্রায়ালের সময়সীমা শেষ হলে নিজেদের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রাখার জন্য সেই সার্ভারগুলিকেই বেছে নিচ্ছেন দেশীয় সংস্থা কর্তৃপক্ষ।

গোয়েন্দাদের অভিযোগ, চিনা কর্তৃপক্ষের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার অঙ্গ হিসাবেই ভারতীয়দের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাদি চিনের রিমোট সার্ভারে সরিয়ে ফেলা হচ্ছে। এর ফলে বহু ভারতীয়ের গোপন তথ্য চিনে পাচার হয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ। যদিও এ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত আলিবাবা কর্তৃপক্ষের কোনও বক্তব্য প্রকাশ করা হয়নি।

আরও পড়ুন: সীমান্তে ৯ মাসেই ৩ হাজারের উপর চুক্তি লঙ্ঘন পাকিস্তানের

Advertisement

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, ইতিমধ্যেই এ দেশে আলিবাবার অন্তত ৭২টি সার্ভার চিহ্নিত করেছেন ভারতীয় গোয়েন্দারা। শীঘ্রই এ নিয়ে পদক্ষেপ করা হবে বলেও গোয়েন্দা সূত্রে খবর।

আরও পড়ুন: চিনা আগ্রাসনেই এলএসিতে উত্তেজনা বেড়েছে, লোকসভায় রাজনাথ

গত মে মাসে পূর্ব লাদাখে চিনা আগ্রাসনের পর থেকে সাম্প্রতিক কালে দু’দেশের সম্পর্কে টানাপড়েন শুরু হয়েছে। উত্তেজনা কমাতে আলোচনার টেবিলে বসলেও দু’পক্ষের মধ্যে দোষারোপ-পাল্টা দোষারোপের পালা থামেনি। ভৌগোলিক ক্ষেত্রে চিনা আগ্রাসনের জবাবে সে দেশের ২০০টিরও বেশি অ্যাপ ভারতে নিষিদ্ধ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই আবহে চিনের বেসরকারি সংস্থাগুলি এ বার শি চিনফিং সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে সাইবার জগতেও ভারতের বিরুদ্ধে ‘পরোক্ষ যুদ্ধ’ শুরু করেছে বলে অভিযোগ উঠছে।

Advertisement