×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

এ দেশের ট্রায়ালে কোভিড টিকার ডোজে বদল নয়, জানাল সিরাম ইনস্টিটিউট

সংবাদ সংস্থা
পুণে০২ ডিসেম্বর ২০২০ ১৩:০১
ছবি: পিটিআই।

ছবি: পিটিআই।

ব্রিটেনের ট্রায়ালে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কম ডোজে প্রয়োগ করেও ৯০ শতাংশ সাফল্য এসেছে। তবে ওই ফলাফল সত্ত্বেও এ দেশে পরীক্ষানিরীক্ষার সময় ডোজের মাত্রার বদল ঘটাবে না সিরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া (এসআইআই)। পুণের ওই সংস্থা জানিয়েছে, ট্রায়ালে স্বেচ্ছাসেবকদের পুরোমাত্রায় দু’টি ডোজই দেওয়া হবে। ট্রায়াল চলাকালীন ডোজের হেরফের ঘটালে তাতে অযথা দেরি হবে বলেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিরাম। অন্যদিকে, সিরামের টিকা নিয়ে এই প্রস্তুতির মধ্যেই দেশে রাশিয়ার গবেষকদের তৈরি টিকা স্পুটনিক ভি-র ট্রায়াল শুরু করল হায়দরাবাদের সংস্থা ডক্টর রেড্ডিজ।

অ্যাস্ট্রাজেনেকার দাবি, ব্রিটেনে পরীক্ষার সময় তাদের কোভিড টিকা ‘কোভিশিল্ড’-এর প্রথম ডোজ অর্ধেক দেওয়ার পর দ্বিতীয় ডোজটি পুরোমাত্রায় প্রয়োগ করা হলেও তা ৯০ শতাংশ কার্যকর হয়েছে। পাশাপাশি, বিশ্ব জুড়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের দেখা গিয়েছে, দু’টি ডোজ পুরোমাত্রায় দিলে তাতে ৬২ শতাংশ সাফল্য মিলছে। মূলত, ব্রাজিল এবং ব্রিটেনের বেশির ভাগ স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে পরীক্ষার সময় এই ফলাফল বার হয়েছে। টিকার ডোজ কমালে তাতে কী ফলাফল আসে, তা ফের মূল্যায়ন করবে বলে জানিয়েছে অ্যাস্ট্রাজেনেকা। তবে ভারতে তাদের পরীক্ষায় বদল ঘটাবে না সিরাম। পুণের এই সংস্থার এগ্‌জিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরেশ যাদব বলেন, ‘‘পরীক্ষার সময় ৫০ শতাংশ সাফল্য এলেই তা যথেষ্ট ইতিবাচক।’’ দু’টি ভিন্ন মাত্রায় ডোজ দিলে তাতে অযথা পরিস্থিতি জটিল করে তুলবে বলেও মনে করেন তিনি। এমনটা কেন হবে তার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সুরেশ বলেন, ‘‘একই মাত্রার ডোজ হলে তাতে ফলাফল সহজেই পাওয়া যায়। কারণ প্রথম ডোজই হোক বা দ্বিতীয়, তা একই মাত্রায় থাকে।’’

কোভিড টিকা নিয়ে সিরামের পরীক্ষানিরীক্ষার মধ্যেই এ দেশে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ট্রায়াল শুরু করেছে ডক্টর রেড্ডিজ। এ দেশে রাশিয়ার করোনার টিকা স্পুটনিক ভি-র ট্রায়াল শুরু করেছে হায়দরাবাদের ওই ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা। রুশ স্বাস্থ্য মন্ত্রক, গামালেয়া রিসার্চ সেন্টার এবং রাশিয়ান ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের (আরডিআইএফ) সম্মিলিত প্রয়াসে তৈরি ওই টিকার ট্রায়ালের জন্য সেন্ট্রাল ড্রাগস ল্যাবরেটরির ছাড়পত্র পেয়েছে ডক্টর রে়ড্ডিজ। আরডিআইএফ-এর দাবি, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে প্রথম ডোজ প্রয়োগের ২৮ দিন পর তাতে ৯১.৪ শতাংশ সাফল্য এসেছে। ৪২ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগে সাফল্য ৯৫ শতাংশ। এই মুহূর্তে ৪০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক স্পুটনিক ভি-র তৃতীয় দফার ট্রায়ালে অংশগ্রহণ করছেন। তার মধ্যে ২২ হাজারের প্রথম ডোজের টিকাকরণ হয়েছে। অন্যদিকে, ১৯ হাজারেরও বেশি পেয়েছেন দু’টি ডোজই।

আরও পড়ুন: ‘নাক দিয়েই মস্তিষ্কে পৌঁছে যাচ্ছে ভাইরাস’

আরও পড়ুন: সকলকে টিকা নয়, বলছে কেন্দ্র

Advertisement
Advertisement