Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৫ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

হিন্দুস্তানকে ‘লিঞ্চিস্তান’ বানাবেন না, লোকসভায় আক্রমণাত্মক কংগ্রেস

ভারতকে ক্রমশ গণপ্রহারের দেশ বানিয়ে ফেলছে বিজেপি। স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের তাণ্ডবের প্রসঙ্গ টেনে লোকসভায় এ দিন তীব্র আক্রমণাত্মক হয়ে উঠলেন মল্লিক

সংবাদ সংস্থা
৩১ জুলাই ২০১৭ ১৮:২৫
Save
Something isn't right! Please refresh.
কেন্দ্রীয় সরকার স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের পরোক্ষে প্রশ্রয় দিচ্ছে বলে এ দিন অভিযোগ করেছেন খাড়গে। ছবি: পিটিআই।

কেন্দ্রীয় সরকার স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের পরোক্ষে প্রশ্রয় দিচ্ছে বলে এ দিন অভিযোগ করেছেন খাড়গে। ছবি: পিটিআই।

Popup Close

গো-রক্ষা ইস্যুতে লোকসভায় কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র আক্রমণ করলেন বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে। সরকার পরোক্ষ ভাবে গো-রক্ষকদের প্রশ্রয় দিচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। ‘হিন্দুস্তান’কে ‘লিঞ্চিস্তান’ (গণপ্রহারের দেশ) বানাবেন না— সরকারকে পরামর্শ কংগ্রেসের দলনেতার। গত চার মাসে দেশের বিভিন্ন অংশে স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের তাণ্ডব একাধিক প্রাণ নিয়েছে। এপ্রিল থেকে জুলাই— এই চার মাসেই অন্তত ২৬টি ঘটনা ঘটেছে বলে বেসরকারি সমীক্ষকদের দাবি। কেন্দ্রীয় সরকারের নিষ্ক্রিয়তাতেই এই ধরনের ঘটনা বাড়ছে বলে খাড়গের অভিযোগ।

লোকসভায় এ দিন মল্লিকার্জুন বলেন, ‘‘এটা হিন্দুস্তান, একে হিন্দুস্তানই থাকতে দিন।...এটাকে ‘লিঞ্চিস্তান’ (ইংরেজি শব্দ ‘লিঞ্চ’-এর বাংলা অর্থ গণপ্রহার) বানাবেন না।’’ খাড়গে আরও বলেন, ‘‘আমি বলছি না সরকার সরাসরি এ সব ঘটাচ্ছে। কিন্তু বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরঙ্গ দল-সহ যে সব সংগঠন বিজেপি-র সঙ্গে যু্ক্ত, সেই সব সংগঠনকে এবং গো-রক্ষকদেরকে সরকার পরোক্ষে উৎসাহ দিচ্ছে।’’ মধ্যপ্রদেশ এবং ঝাড়খণ্ড সরকারকে সবচেয়ে বেশি আক্রমণ করেছেন মল্লিকার্জুন খাড়গে। বিজেপি শাসিত ওই দুই রাজ্যকে এ দিন ‘গণপ্রহার কেন্দ্র’ আখ্যা দিয়েছেন লোকসভায় কংগ্রেস দলনেতা।

Advertisement



গো-রক্ষার নামে ২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি অপরাধ হয়েছিল বলে সমীক্ষায় জানা গিয়েছিল। কিন্তু ২০১৭ প্রথম সাত মাসেই ছাড়িয়ে গিয়েছে আগের বছরকে। —প্রতীকী ছবি।

এ বছরের ১ এপ্রিল রাজস্থানে স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের হামলায় পহেলু খান নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। তার পর থেকে এ পর্যন্ত মাত্র চার মাসে দেশের অন্তত ২৬টি জায়গায় গো-রক্ষকদের তাণ্ডবের ঘটনা সামনে এসেছে। এ ধরনের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটেছে ঝাড়খণ্ড এবং মধ্যপ্রদেশে। ইন্ডিয়াস্পেন্ড নামে একটি বেসরকারি সংস্থার সমীক্ষা বলছে, অসহিষ্ণুতা জনিত অপরাধের নিরিখে এত দিন পর্যন্ত ২০১৬ সালই ছিল সবচেয়ে খারাপ বছর। ওই বছরে গো-রক্ষকদের তাণ্ডব এবং ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা জনিত অশান্তি যে আকার নিয়েছিল, তা আগে কখনও ঘটেনি। ইন্ডিয়াস্পেন্ডের সমীক্ষা বলছে, এ বছরে প্রথম সাত মাসেই অসহিষ্ণুতা জনিত ঘটনার সংখ্যা ছাপিয়ে গিয়েছে ২০১৬ সালকে।

আরও পড়ুন: নীতীশ দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটিয়েছেন: সংসদ চত্বরে উষ্মা শরদের

মল্লিকার্জুন খাড়গে লোকসভায় এ দিন বিজেপি-কে আক্রমণ করে প্রশ্ন তোলেন, ‘‘আপনারা এদের (স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের) কার্যকলাপের দায় নিতে অস্বীকার করেন। কিন্তু এদের বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ আপনারা করেছেন?’’ বিজেপি সাসংদ এইচ এন যাদব খাড়গের কথার জবাবে জানান, প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যেই এই সব ঘটনার কড়া নিন্দা করেছেন। তিনি বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ মেনে পদক্ষেপ করার দায়িত্ব এখন রাজ্য সরকারগুলির।’’ এ কথার জবাবে খাড়গে কেরলের প্রসঙ্গ টেনে আনেন। সে রাজ্যে আরএসএস কর্মী খুন হওয়ার পর পুলিশ প্রধানকে তলব করে জবাব চেয়েছেন রাজ্যপাল। সে কথা উল্লেখ করে খাড়গে প্রশ্ন তোলেন, গো-রক্ষকদের হামলায় যখন মানুষ আক্রান্ত হন, তখন কেন রাজ্যপালরা এই সক্রিয়তা দেখান না?

আরও পড়ুন: ‘জয় শ্রীরাম’ বলে ক্ষমা চাইলেন বিহারের মুসলিম বিধায়ক

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement