×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৭ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

জেএনইউ ভোটে বাম ঝড়, মুখে মুখে দুর্গাপুরের মেয়ে ঐশীর নাম

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২২:১৭
গণণায় এগিয়ে চার বাম ছাত্র নেতা। ছবি: ফেসবুক

গণণায় এগিয়ে চার বাম ছাত্র নেতা। ছবি: ফেসবুক

দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনে পরাজয় প্রায় নিশ্চিত গেরুয়া ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের। সভাপতি, সহ-সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক ছাত্র, সংসদের প্রতিটি পদেই জয়ের দিকে বাম সংগঠনগুলির জোট।

এবার জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনে বামমনস্ক দলগুলি জোট করে লড়েছে অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের বিরুদ্ধে। অল ইন্ডিয়া স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, স্টুডেন্ট ফেডারেশন অব ইন্ডিয়া, ডেমোক্র্যাটিক স্টুডেন্টস ফেডারেশন এবং অল ইন্ডিয়া স্টুডেন্ট ফেডারেশনের এই যুগ্ম লড়াই গেরুয়া শিবিরকে অনেকটাই পিছনে ফেলে দিয়েছে।

দিল্লিতে বাম ছাত্রদের এই লড়াইয়ের প্রধান মুখ বাংলার মেয়ে ঐশী ঘোষ।দুর্গাপুরের মেয়ে ঐশীকে ইতিমধ্যে অনেকেই বলছেন কানহাইয়া কুমারের উত্তরসূরি। সভাপতি পদের জন্যে মনোনীত ঐশী ঘোষ দিনের শেষে ৫৫০ ব্যালটের মধ্যে এগিয়ে রয়েছেন ২৬৬ ভোটে। ৩৬০ ভোট পেয়ে অনেকটা এগিয়ে গিয়েছেন সহ-সভাপতি পদে লড়াই করা সাকেত মুন। সাধারণ সম্পাদক হওয়ার ক্ষেত্রে ২৬১টি ভোট পেয়ে জয় প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেছেন বাম প্রার্থী সতীশচন্দ্র যাদব।

Advertisement

আরও পড়ুন:একশো দিনে ষাট বছরের কাজ হয়েছ! সাফল্যের ফিরিস্তি দিয়ে দাবি নরেন্দ্র মোদীর
আরও পড়ুন:চাঁদে আছড়েই পড়েছে বিক্রম, নিশ্চিত ইসরো প্রধান, তবে হাল ছাড়ছেন না

দুই ছাত্রনেতার আবেদনের ভিত্তিতে দিল্লি হাইকোর্ট জানিয়েছে জেএনইউ নির্বাচনের ফল ঘোষণা করতে হবে ১৭ সেপ্টেম্বর। শুক্রবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রিভান্স রিড্রেসাল সেলের সঙ্গে ভোটগণনা নিয়ে ছাত্রনেতাদের একপ্রস্থ বচসা হয়। নির্বাচন পদ্ধতি ও ফল ঘোষণার দিনক্ষণ নিয়ে বাদানুবাদ চলে। রাত ১১টা ৫৫মিনিটে ব্যালট গণনা শুরু হওয়ার কথা ঘোষণা হলে ছাত্রছাত্রীরা বেঁকে বসেন। ছাত্ররা স্পষ্ট বলেন, আগেই নির্বাচনের ফল বাইরে আনা যাবে না। এই মর্মে লিখিত বয়ানও চান তাঁরা। টালবাহানায় কেটে যায় ১১ ঘণ্টা। রবিবার গণনা চলাকালীনই বোঝা যায় ফল বামেদের দিকেই।

এ বার জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৬৭.৯ শতাংশ। গত সাত বছরের তুলনায় ভোটদানে ছাত্রদের অংশগ্রহণ এই বছরে বেশি।

Advertisement